۞ بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ ۞
অনুবাদকে টিক দিন        


সমগ্র কুরআনে সার্চ করার জন্য আরবি অথবা বাংলা শব্দ দিন...


তথ্য খুজুন: যেমন মায়িদা x
সুরা লিস্ট দেখুন

সূরা নাম (Sura Name): �������� ������������ -- At-Tariq -- ������-���������������
Arabic Font Size:
আয়ত নাম্বার বায়ান ফাউন্ডেশন মুজিবুর রহমান তাইসীরুল কুরআন আরবি
1 কসম আসমানের ও রাতে আগমনকারীর। শপথ আকাশের এবং রাতে যা আবির্ভূত হয় তার; শপথ আসমানের আর যা রাতে আসে তার, وَ السَّمَآءِ وَ الطَّارِقِۙ﴿١ ﴾
2 আর কিসে তোমাকে জানাবে রাতে আগমনকারী কী? তুমি কী জান রাতে যা আবির্ভূত হয় তা কি? তুমি কি জান যা রাতে আসে তা কী? وَ مَاۤ اَدْرٰىكَ مَا الطَّارِقُۙ﴿٢ ﴾
3 উজ্জ্বল নক্ষত্র। ওটা দীপ্তিমান নক্ষত্র! উজ্জ্বল নক্ষত্র। النَّجْمُ الثَّاقِبُۙ﴿٣ ﴾
4 প্রত্যেক জীবের উপরই সংরক্ষক রয়েছে। প্রত্যেক জীবের উপরই সংরক্ষক রয়েছে। প্রত্যেক আত্মার সাথে একজন সংরক্ষক আছে। اِنْ كُلُّ نَفْسٍ لَّمَّا عَلَیْهَا حَافِظٌؕ﴿٤ ﴾
5 অতএব মানুষের চিন্তা করে দেখা উচিৎ, তাকে কী থেকে সৃষ্টি করা হয়েছে ? সুতরাং মানুষের চিন্তা করা উচিত যে, তাকে কিসের দ্বারা সৃষ্টি করা হয়েছে। অতঃপর মানুষ চিন্তা করে দেখুক কোন জিনিস থেকে তাকে সৃষ্টি করা হয়েছে। فَلْیَنْظُرِ الْاِنْسَانُ مِمَّ خُلِقَؕ﴿٥ ﴾
6 তাকে সৃষ্টি করা হয়েছে দ্রুতবেগে নির্গত পানি থেকে। তাকে সৃষ্টি করা হয়েছে সবেগে স্খলিত পানি হতে, তাকে সৃষ্টি করা হয়েছে সবেগে বের হয়ে আসা পানি থেকে। خُلِقَ مِنْ مَّآءٍ دَافِقٍۙ﴿٦ ﴾
7 যা বের হয় মেরুদন্ড ও বুকের হাঁড়ের মধ্য থেকে। এটা নির্গত হয় পৃষ্ঠদেশ ও পঞ্জরাস্থির মধ্য হতে। যা বের হয় শিরদাঁড়া ও পাঁজরের মাঝখান থেকে। یَّخْرُجُ مِنْۢ بَیْنِ الصُّلْبِ وَ التَّرَآىِٕبِؕ﴿٧ ﴾
8 নিশ্চয় তিনি তাকে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম। নিশ্চয়ই তিনি তার পুনরাবর্তনে ক্ষমতাবান। তিনি মানুষকে আবার (জীবনে) ফিরিয়ে আনতে অবশ্যই সক্ষম। اِنَّهٗ عَلٰی رَجْعِهٖ لَقَادِرٌؕ﴿٨ ﴾
9 যে দিন গোপন বিষয়াদি পরীক্ষা করা হবে। যেদিন গোপন বিষয়সমূহ পরীক্ষা করা হবে – যেদিন (কাজকর্ম আকীদা বিশ্বাস ও নিয়্যাত সম্পর্কিত) গোপন বিষয়াদি যাচাই পরখ করা হবে। یَوْمَ تُبْلَی السَّرَآىِٕرُۙ﴿٩ ﴾
10 অতএব তার কোন শক্তি থাকবে না। আর সাহায্যকারীও না। সেদিন তার কোন ক্ষমতা থাকবেনা এবং সাহায্যকারীও না। সেদিন মানুষের না থাকবে নিজের কোন সামর্থ্য, আর না থাকবে কোন সাহায্যকারী। فَمَا لَهٗ مِنْ قُوَّةٍ وَّ لَا نَاصِرٍؕ﴿١٠ ﴾
11 বৃষ্টিসম্পন্ন আসমানের কসম। শপথ আসমানের যা ধারণ করে বৃষ্টি, ঘুরে ঘুরে আসা বৃষ্টিবাহী আকাশের শপথ, وَ السَّمَآءِ ذَاتِ الرَّجْعِۙ﴿١١ ﴾
12 কসম বিদীর্ণ যমীনের। এবং শপথ যমীনের যা বিদীর্ণ হয়, এবং গাছপালার চারা গজানোর সময় বক্ষ দীর্ণকারী যমীনের শপথ, (বৃষ্টিপাতের মাধ্যমে বৃক্ষলতার উৎপাদন যেমন অকাট্য সত্য, তেমনি কুরআন যা ঘোষণা করে তাও অকাট্য সত্য) وَ الْاَرْضِ ذَاتِ الصَّدْعِۙ﴿١٢ ﴾
13 নিশ্চয় এটা ফয়সালাকারী বাণী। নিশ্চয়ই ইহা (আল কুরআন) মীমাংসাকারী বাণী, কুরআন (সত্য-মিথ্যার পার্থক্যকারী) চূড়ান্ত সিদ্ধান্তকারী বাণী, اِنَّهٗ لَقَوْلٌ فَصْلٌۙ﴿١٣ ﴾
14 আর তা অনর্থক নয়। এবং এটা নিরর্থক নয়। এবং তা কোন হাসি-ঠাট্টামূলক কথা নয়। وَّ مَا هُوَ بِالْهَزْلِؕ﴿١٤ ﴾
15 নিশ্চয় তারা ভীষণ কৌশল করছে। তারা ভীষণ ষড়যন্ত্র করে, এবং তারা (সত্যের বিরুদ্ধে) ষড়যন্ত্র করছে, اِنَّهُمْ یَكِیْدُوْنَ كَیْدًاۙ﴿١٥ ﴾
16 আর আমিও ভীষণ কৌশল করছি। আর আমিও ভীষণ কৌশল করি। আর আমিও (তাদের অন্যায় ধ্বংসাত্মক ষড়যন্ত্র ভন্ডুল করার) কৌশল করছি। وَّ اَكِیْدُ كَیْدًاۚۖ﴿١٦ ﴾
17 অতএব কাফিরদেরকে অবকাশ দাও, তাদেরকে কিছু সময়ের অবকাশ দাও। অতএব কাফিরদেরকে অবকাশ দাও, তাদেরকে অবকাশ দাও কিছু কালের জন্য। কাজেই (এই ষড়যন্ত্রকারী) কাফিরদেরকে অবকাশ দাও, তাদেরকে কিছু সময়ের জন্য অবকাশ দাও। فَمَهِّلِ الْكٰفِرِیْنَ اَمْهِلْهُمْ رُوَیْدًا﴿١٧ ﴾