۞ بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ ۞
অনুবাদকে টিক দিন        


সমগ্র কুরআনে সার্চ করার জন্য আরবি অথবা বাংলা শব্দ দিন...


তথ্য খুজুন: যেমন মায়িদা x
সুরা লিস্ট দেখুন

সূরা নাম (Sura Name): �������� ���������� -- Al-Lail -- ������-������������
Arabic Font Size:
আয়ত নাম্বার বায়ান ফাউন্ডেশন মুজিবুর রহমান তাইসীরুল কুরআন আরবি
1 কসম রাতের, যখন তা ঢেকে দেয়। শপথ রাতের যখন ওটা আচ্ছন্ন করে, শপথ রাতের যখন তা (আলোকে) ঢেকে দেয়, وَ الَّیْلِ اِذَا یَغْشٰیۙ﴿١ ﴾
2 কসম দিনের, যখন তা আলোকিত হয়। শপথ দিনের যখন ওটা উদ্ভাসিত করে, শপথ দিনের যখন তা উদ্ভাসিত হয়ে উঠে। وَ النَّهَارِ اِذَا تَجَلّٰیۙ﴿٢ ﴾
3 কসম তাঁর, যিনি নর ও নারী সৃষ্টি করেছেন। এবং শপথ নর ও নারীর যা তিনি সৃষ্টি করেছেন। আর শপথ তাঁর যিনি সৃষ্টি করেছেন পুরুষ ও নারী, وَ مَا خَلَقَ الذَّكَرَ وَ الْاُنْثٰۤیۙ﴿٣ ﴾
4 নিশ্চয় তোমাদের কর্মপ্রচেষ্টা বিভিন্ন প্রকারের। অবশ্যই তোমাদের কর্মপ্রচেষ্টা বিভিন্ন মুখী, তোমাদের চেষ্টা সাধনা অবশ্যই বিভিন্নমুখী। اِنَّ سَعْیَكُمْ لَشَتّٰیؕ﴿٤ ﴾
5 সুতরাং যে দান করেছে এবং তাকওয়া অবলম্বন করেছে, সুতরাং কেহ দান করলে, সংযত হলে – অতএব যে ব্যক্তি (আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য) দান করে ও (আল্লাহকে) ভয় করে, فَاَمَّا مَنْ اَعْطٰی وَ اتَّقٰیۙ﴿٥ ﴾
6 আর উত্তমকে সত্য বলে বিশ্বাস করেছে, এবং সদ্বিষয়কে সত্যজ্ঞান করলে – এবং উত্তম বিষয়কে সত্য মনে করে, وَ صَدَّقَ بِالْحُسْنٰیۙ﴿٦ ﴾
7 আমি তার জন্য সহজ পথে চলা সুগম করে দেব। অচিরেই আমি তার জন্য সুগম করে দিব সহজ পথ। আমি তার জন্য সহজ পথে চলা সহজ করে দেব। فَسَنُیَسِّرُهٗ لِلْیُسْرٰیؕ﴿٧ ﴾
8 আর যে কার্পণ্য করেছে এবং নিজকে স্বয়ংসম্পূর্ণ মনে করেছে, পক্ষান্তরে কেহ কার্পণ্য করলে ও নিজেকে স্বয়ংসম্পূর্ণ মনে করলে – আর যে ব্যক্তি কৃপণতা করে আর (আল্লাহর প্রতি) বেপরোয়া হয়, وَ اَمَّا مَنْۢ بَخِلَ وَ اسْتَغْنٰیۙ﴿٨ ﴾
9 আর উত্তমকে মিথ্যা বলে মনে করেছে, আর যা উত্তম তা অস্বীকার করলে – আর যা উত্তম তা অমান্য করে, وَ كَذَّبَ بِالْحُسْنٰیۙ﴿٩ ﴾
10 আমি তার জন্য কঠিন পথে চলা সুগম করে দেব। অচিরেই তার জন্য আমি সুগম করে দিব কঠোর পরিণামের পথ – আমি তার জন্য কঠিন পথ (অর্থাৎ অন্যায়, অসত্য, হিংসা ও হানাহানির পথ) সহজ করে দিব। فَسَنُیَسِّرُهٗ لِلْعُسْرٰیؕ﴿١٠ ﴾
11 আর তার সম্পদ তার কোন কাজে আসবে না, যখন সে অধঃপতিত হবে। এবং তার সম্পদ তার কোন কাজে আসবেনা যখন সে ধ্বংস হবে। যখন সে ধ্বংস হবে (অর্থাৎ মরবে) তখন তার (সঞ্চিত) ধন-সম্পদ কোনই কাজে আসবে না। وَ مَا یُغْنِیْ عَنْهُ مَالُهٗۤ اِذَا تَرَدّٰیؕ﴿١١ ﴾
12 নিশ্চয় পথ প্রদর্শন করাই আমার দায়িত্ব। আমার কাজতো শুধু পথ নির্দেশ করা, সঠিক পথ দেখানো অবশ্যই আমারই কাজ اِنَّ عَلَیْنَا لَلْهُدٰیؗۖ﴿١٢ ﴾
13 আর অবশ্যই আমার অধিকারে পরকাল ও ইহকাল। আমিই মালিক পরলোকের ও ইহলোকের। আর পরকাল ও ইহকালের একমাত্র মালিক আমি। وَ اِنَّ لَنَا لَلْاٰخِرَةَ وَ الْاُوْلٰی﴿١٣ ﴾
14 অতএব আমি তোমাদের সতর্ক করে দিয়েছি লেলিহান আগুন সম্পর্কে, আমি তোমাদেরকে জাহান্নামের লেলিহান আগুন হতে সতর্ক করে দিয়েছি। কাজেই আমি তোমাদেরকে দাউ দাউ ক’রে জ্বলা আগুন সম্পর্কে সতর্ক করে দিচ্ছি। فَاَنْذَرْتُكُمْ نَارًا تَلَظّٰیۚ﴿١٤ ﴾
15 তাতে নিতান্ত হতভাগা ছাড়া কেউ প্রবেশ করবে না; তাতে প্রবেশ করবে সে’ই যে নিতান্ত হতভাগা – চরম হতভাগা ছাড়া কেউ তাতে প্রবেশ করবে না। لَا یَصْلٰىهَاۤ اِلَّا الْاَشْقَیۙ﴿١٥ ﴾
16 যে অস্বীকার করেছে এবং মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। যে অসত্যারোপ করে ও মুখ ফিরিয়ে নেয়। যে অস্বীকার করে ও মুখ ফিরিয়ে নেয় الَّذِیْ كَذَّبَ وَ تَوَلّٰیؕ﴿١٦ ﴾
17 আর তা থেকে দূরে রাখা হবে পরম মুত্তাকীকে। আর ওটা হতে রক্ষা পাবে সেই পরম মুত্তাকী – তাত্থেকে দূরে রাখা হবে এমন ব্যক্তিকে যে আল্লাহকে খুব বেশি ভয় করে, وَ سَیُجَنَّبُهَا الْاَتْقَیۙ﴿١٧ ﴾
18 যে তার সম্পদ দান করে আত্ম-শুদ্ধির উদ্দেশ্যে, যে স্বীয় সম্পদ দান করে আত্মশুদ্ধির উদ্দেশে, যে পবিত্রতা অর্জনের উদ্দেশে নিজের ধন-সম্পদ দান করে, الَّذِیْ یُؤْتِیْ مَالَهٗ یَتَزَكّٰیۚ﴿١٨ ﴾
19 আর তার প্রতি কারো এমন কোন অনুগ্রহ নেই, যার প্রতিদান দিতে হবে। এবং তার প্রতি কারও অনুগ্রহের প্রতিদান হিসাবে নয়, (সে দান করে) তার প্রতি কারো অনুগ্রহের প্রতিদান হিসেবে নয়, وَ مَا لِاَحَدٍ عِنْدَهٗ مِنْ نِّعْمَةٍ تُجْزٰۤیۙ﴿١٩ ﴾
20 কেবল তার মহান রবের সন্তুষ্টির প্রত্যাশায়। বরং শুধু তার মহান রবের সন্তোষ লাভের প্রত্যাশায়, একমাত্র তার মহান প্রতিপালকের চেহারা (সন্তোষ) লাভের আশায়। اِلَّا ابْتِغَآءَ وَجْهِ رَبِّهِ الْاَعْلٰیۚ﴿٢٠ ﴾
21 আর অচিরেই সে সন্তোষ লাভ করবে। সেতো অচিরেই সন্তোষ লাভ করবে। সে অবশ্যই অতি শীঘ্র (আল্লাহর নি‘মাত পেয়ে) সন্তুষ্ট হয়ে যাবে। وَ لَسَوْفَ یَرْضٰی﴿٢١ ﴾