۞ بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ ۞
অনুবাদকে টিক দিন        


সমগ্র কুরআনে সার্চ করার জন্য আরবি অথবা বাংলা শব্দ দিন...


তথ্য খুঁজুন: যেমনঃ মায়িদা x
সুরা লিস্ট দেখুন

সূরা নাম (Sura Name): �������� �������������� -- Ash-Shu'ara -- ������-���������'������
আয়াত সংখ্যা: 227
আয়াত আরবি
ত্ব-সীন-মীম।
[ ������-���������'������: 1 ]
طٰسٓمّٓ﴿١ ﴾
এগুলো সুস্পষ্ট কিতাবের আয়াত।
[ ������-���������'������: 2 ]
تِلْكَ اٰیٰتُ الْكِتٰبِ الْمُبِیْنِ﴿٢ ﴾
তারা মুমিন হবে না বলে হয়ত তুমি আত্মবিনাশী হয়ে পড়বে।
[ ������-���������'������: 3 ]
لَعَلَّكَ بَاخِعٌ نَّفْسَكَ اَلَّا یَكُوْنُوْا مُؤْمِنِیْنَ﴿٣ ﴾
আমি ইচ্ছা করলে আসমান থেকে তাদের উপর এমন নিদর্শন অবতীর্ণ করতাম ফলে তার প্রতি তাদের ঘাড়গুলো নত হয়ে যেত।
[ ������-���������'������: 4 ]
اِنْ نَّشَاْ نُنَزِّلْ عَلَیْهِمْ مِّنَ السَّمَآءِ اٰیَةً فَظَلَّتْ اَعْنَاقُهُمْ لَهَا خٰضِعِیْنَ﴿٤ ﴾
আর যখনই তাদের কাছে পরম করুণাময়ের পক্ষ থেকে কোন নতুন উপদেশ আসে তখনই তারা তা থেকে বিমুখ হয়।
[ ������-���������'������: 5 ]
وَ مَا یَاْتِیْهِمْ مِّنْ ذِكْرٍ مِّنَ الرَّحْمٰنِ مُحْدَثٍ اِلَّا كَانُوْا عَنْهُ مُعْرِضِیْنَ﴿٥ ﴾
অতএব অবশ্যই তারা অস্বীকার করেছে। কাজেই তারা যা নিয়ে ঠাট্টা-বিদ্রূপ করত, তার সংবাদ অচিরেই তাদের কাছে এসে পড়বে।
[ ������-���������'������: 6 ]
فَقَدْ كَذَّبُوْا فَسَیَاْتِیْهِمْ اَنْۢبٰٓؤُا مَا كَانُوْا بِهٖ یَسْتَهْزِءُوْنَ﴿٦ ﴾
তারা কি যমীনের প্রতি লক্ষ করেনি? আমি তাতে প্রত্যেক প্রকারের বহু উৎকৃষ্ট উদ্ভিদ উদগত করেছি।
[ ������-���������'������: 7 ]
اَوَ لَمْ یَرَوْا اِلَی الْاَرْضِ كَمْ اَنْۢبَتْنَا فِیْهَا مِنْ كُلِّ زَوْجٍ كَرِیْمٍ﴿٧ ﴾
নিশ্চয় এতে আছে নিদর্শন, আর তাদের অধিকাংশই মুমিন নয়।
[ ������-���������'������: 8 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿٨ ﴾
আর নিশ্চয় তোমার রব, তিনি তো মহা পরাক্রমশালী, পরম দয়ালু।
[ ������-���������'������: 9 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿٩ ﴾
আর স্মরণ কর, যখন তোমার রব মূসাকে ডেকে বললেন, ‘তুমি যালিম সম্প্রদায়ের কাছে যাও’।
[ ������-���������'������: 10 ]
وَ اِذْ نَادٰی رَبُّكَ مُوْسٰۤی اَنِ ائْتِ الْقَوْمَ الظّٰلِمِیْنَۙ﴿١٠ ﴾
‘ফির‘আউনের সম্প্রদায়ের কাছে। তারা কি ভয় করবে না’?
[ ������-���������'������: 11 ]
قَوْمَ فِرْعَوْنَ ؕ اَلَا یَتَّقُوْنَ﴿١١ ﴾
মূসা বলল, ‘হে আমার রব, আমি অবশ্যই আশঙ্কা করছি যে, তারা আমাকে অস্বীকার করবে’।
[ ������-���������'������: 12 ]
قَالَ رَبِّ اِنِّیْۤ اَخَافُ اَنْ یُّكَذِّبُوْنِؕ﴿١٢ ﴾
‘আর আমার বক্ষ সঙ্কুচিত হয়ে যাচ্ছে। আমার জিহবা চলছে না। সুতরাং আপনি হারুনের প্রতি ওহী পাঠান’।
[ ������-���������'������: 13 ]
وَ یَضِیْقُ صَدْرِیْ وَ لَا یَنْطَلِقُ لِسَانِیْ فَاَرْسِلْ اِلٰی هٰرُوْنَ﴿١٣ ﴾
‘আর আমার বিরুদ্ধে তাদের কাছে একটি অপরাধের অভিযোগ রয়েছে। ফলে আমি আশঙ্কা করছি যে, তারা আমাকে হত্যা করে ফেলবে’।
[ ������-���������'������: 14 ]
وَ لَهُمْ عَلَیَّ ذَنْۢبٌ فَاَخَافُ اَنْ یَّقْتُلُوْنِۚ﴿١٤ ﴾
আল্লাহ বললেন, ‘কখনো নয়। তোমরা উভয়ে আমার নিদর্শনাদিসহ যাও। অবশ্যই আমি আছি তোমাদের সাথে শ্রবণকারী’।
[ ������-���������'������: 15 ]
قَالَ كَلَّا ۚ فَاذْهَبَا بِاٰیٰتِنَاۤ اِنَّا مَعَكُمْ مُّسْتَمِعُوْنَ﴿١٥ ﴾
‘সুতরাং তোমরা উভয়ে ফির‘আউনের কাছে গিয়ে বল, নিশ্চয় আমরা বিশ্বজগতের রবের রাসূল’।
[ ������-���������'������: 16 ]
فَاْتِیَا فِرْعَوْنَ فَقُوْلَاۤ اِنَّا رَسُوْلُ رَبِّ الْعٰلَمِیْنَۙ﴿١٦ ﴾
‘যাতে তুমি বনী ইসরাঈলকে আমাদের সাথে পাঠাও’।
[ ������-���������'������: 17 ]
اَنْ اَرْسِلْ مَعَنَا بَنِیْۤ اِسْرَآءِیْلَؕ﴿١٧ ﴾
ফির‘আউন বলল, ‘আমরা কি তোমাকে শৈশবে আমাদের মাঝে লালন পালন করিনি? আর তুমি তোমার জীবনের অনেক বছর আমাদের মধ্যে অবস্থান করেছ’।
[ ������-���������'������: 18 ]
قَالَ اَلَمْ نُرَبِّكَ فِیْنَا وَلِیْدًا وَّ لَبِثْتَ فِیْنَا مِنْ عُمُرِكَ سِنِیْنَۙ﴿١٨ ﴾
‘আর তুমি তোমার কর্ম যা করার তা করেছ এবং তুমি অকৃতজ্ঞদের অন্তর্ভুক্ত’।
[ ������-���������'������: 19 ]
وَ فَعَلْتَ فَعْلَتَكَ الَّتِیْ فَعَلْتَ وَ اَنْتَ مِنَ الْكٰفِرِیْنَ﴿١٩ ﴾
মূসা বলল, ‘আমি এটি তখন করেছিলাম, যখন আমি ছিলাম বিভ্রান্ত’।
[ ������-���������'������: 20 ]
قَالَ فَعَلْتُهَاۤ اِذًا وَّ اَنَا مِنَ الضَّآلِّیْنَؕ﴿٢٠ ﴾
‘অতঃপর যখন আমি তোমাদেরকে ভয় করলাম, তখন আমি তোমাদের থেকে পালিয়ে গেলাম। তারপর আমার রব আমাকে প্রজ্ঞা দান করলেন এবং আমাকে রাসূলদের অন্তর্ভুক্ত করলেন’।
[ ������-���������'������: 21 ]
فَفَرَرْتُ مِنْكُمْ لَمَّا خِفْتُكُمْ فَوَهَبَ لِیْ رَبِّیْ حُكْمًا وَّ جَعَلَنِیْ مِنَ الْمُرْسَلِیْنَ﴿٢١ ﴾
‘আর এই তো সে অনুগ্রহ যার খোঁটা তুমি আমাকে দিচ্ছ যে, তুমি বনী ইসরাঈলকে দাস বানিয়ে রেখেছ’।
[ ������-���������'������: 22 ]
وَ تِلْكَ نِعْمَةٌ تَمُنُّهَا عَلَیَّ اَنْ عَبَّدْتَّ بَنِیْۤ اِسْرَآءِیْلَؕ﴿٢٢ ﴾
ফির‘আউন বলল, ‘সৃষ্টিকুলের রব কে?’
[ ������-���������'������: 23 ]
قَالَ فِرْعَوْنُ وَ مَا رَبُّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿٢٣ ﴾
মূসা বলল, ‘আসমানসমূহ ও যমীন এবং এতদোভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছুর রব, যদি তোমরা নিশ্চিত বিশ্বাসী হয়ে থাক।’
[ ������-���������'������: 24 ]
قَالَ رَبُّ السَّمٰوٰتِ وَ الْاَرْضِ وَ مَا بَیْنَهُمَا ؕ اِنْ كُنْتُمْ مُّوْقِنِیْنَ﴿٢٤ ﴾
ফির‘আউন তার আশেপাশে যারা ছিল তাদেরকে বলল, ‘তোমরা কি মনোযোগসহ শুনছ না’?
[ ������-���������'������: 25 ]
قَالَ لِمَنْ حَوْلَهٗۤ اَلَا تَسْتَمِعُوْنَ﴿٢٥ ﴾
মূসা বলল, ‘তিনি তোমাদের রব এবং তোমাদের পিতৃপুরুষদেরও রব’।
[ ������-���������'������: 26 ]
قَالَ رَبُّكُمْ وَ رَبُّ اٰبَآىِٕكُمُ الْاَوَّلِیْنَ﴿٢٦ ﴾
ফির‘আউন বলল, ‘তোমাদের কাছে প্রেরিত তোমাদের এই রাসূল নিশ্চয়ই পাগল’।
[ ������-���������'������: 27 ]
قَالَ اِنَّ رَسُوْلَكُمُ الَّذِیْۤ اُرْسِلَ اِلَیْكُمْ لَمَجْنُوْنٌ﴿٢٧ ﴾
মূসা বলল, ‘তিনি পূর্ব ও পশ্চিম এবং এতদোভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছুর রব, যদি তোমরা বুঝে থাক’।
[ ������-���������'������: 28 ]
قَالَ رَبُّ الْمَشْرِقِ وَ الْمَغْرِبِ وَ مَا بَیْنَهُمَا ؕ اِنْ كُنْتُمْ تَعْقِلُوْنَ﴿٢٨ ﴾
ফির‘আউন বলল, ‘যদি তুমি আমাকে ছাড়া কাউকে ইলাহরূপে গ্রহণ কর, তাহলে অবশ্যই আমি তোমাকে কয়েদীদের অন্তর্ভুক্ত করব’।
[ ������-���������'������: 29 ]
قَالَ لَىِٕنِ اتَّخَذْتَ اِلٰهًا غَیْرِیْ لَاَجْعَلَنَّكَ مِنَ الْمَسْجُوْنِیْنَ﴿٢٩ ﴾
মূসা বলল, ‘যদি আমি তোমার কাছে স্পষ্ট কোন বিষয় নিয়ে আসি, তবুও’?
[ ������-���������'������: 30 ]
قَالَ اَوَ لَوْ جِئْتُكَ بِشَیْءٍ مُّبِیْنٍۚ﴿٣٠ ﴾
ফির‘আউন বলল, ‘তুমি সত্যবাদী হয়ে থাকলে তা নিয়ে এসো’।
[ ������-���������'������: 31 ]
قَالَ فَاْتِ بِهٖۤ اِنْ كُنْتَ مِنَ الصّٰدِقِیْنَ﴿٣١ ﴾
অতঃপর সে তার লাঠি ফেলে দিল, ফলে তৎক্ষণাৎ তা একটি স্পষ্ট অজগর হয়ে গেল।
[ ������-���������'������: 32 ]
فَاَلْقٰی عَصَاهُ فَاِذَا هِیَ ثُعْبَانٌ مُّبِیْنٌۚۖ﴿٣٢ ﴾
আর সে তার হাত বের করল, ফলে তা তৎক্ষণাৎ দর্শকদের সামনে উজ্জ্বল-সাদা হয়ে দেখা দিল।
[ ������-���������'������: 33 ]
وَّ نَزَعَ یَدَهٗ فَاِذَا هِیَ بَیْضَآءُ لِلنّٰظِرِیْنَ﴿٣٣ ﴾
ফির‘আউন তার আশপাশের পারিষদদের উদ্দেশ্যে বলল, ‘এ তো এক বিজ্ঞ যাদুকর।’
[ ������-���������'������: 34 ]
قَالَ لِلْمَلَاِ حَوْلَهٗۤ اِنَّ هٰذَا لَسٰحِرٌ عَلِیْمٌۙ﴿٣٤ ﴾
‘সে তোমাদেরকে তার যাদুর মাধ্যমে তোমাদের দেশ থেকে বের করতে চায়। অতএব, তোমরা আমাকে কী পরামর্শ দাও?’
[ ������-���������'������: 35 ]
یُّرِیْدُ اَنْ یُّخْرِجَكُمْ مِّنْ اَرْضِكُمْ بِسِحْرِهٖ ۖۗ فَمَا ذَا تَاْمُرُوْنَ﴿٣٥ ﴾
তারা বলল, ‘তাকে ও তার ভাইকে কিছু সময়ের জন্য অবকাশ দাও, আর সংগ্রহকারীদেরকে নগরে-নগরে পাঠিয়ে দাও।’
[ ������-���������'������: 36 ]
قَالُوْۤا اَرْجِهْ وَ اَخَاهُ وَ ابْعَثْ فِی الْمَدَآىِٕنِ حٰشِرِیْنَۙ﴿٣٦ ﴾
‘তারা তোমার নিকট প্রত্যেক বিজ্ঞ যাদুকরকে নিয়ে আসুক’।
[ ������-���������'������: 37 ]
یَاْتُوْكَ بِكُلِّ سَحَّارٍ عَلِیْمٍ﴿٣٧ ﴾
অতঃপর এক নির্ধারিত দিনের নির্দিষ্ট সময়ে যাদুকরদের একত্র করা হল।
[ ������-���������'������: 38 ]
فَجُمِعَ السَّحَرَةُ لِمِیْقَاتِ یَوْمٍ مَّعْلُوْمٍۙ﴿٣٨ ﴾
আর লোকদের বলা হল, ‘তোমরা কি সমবেত হবে?’
[ ������-���������'������: 39 ]
وَّ قِیْلَ لِلنَّاسِ هَلْ اَنْتُمْ مُّجْتَمِعُوْنَۙ﴿٣٩ ﴾
‘যাতে আমরা যাদুকরদের অনুসরণ করতে পারি, যদি তারা বিজয়ী হয়’।
[ ������-���������'������: 40 ]
لَعَلَّنَا نَتَّبِعُ السَّحَرَةَ اِنْ كَانُوْا هُمُ الْغٰلِبِیْنَ﴿٤٠ ﴾
অতঃপর যখন যাদুকররা আসল,তারা ফির‘আউনকে বলল,‘যদি আমরাই বিজয়ী হই, তবে আমাদের জন্য কি সত্যিই পুরস্কার আছে?’
[ ������-���������'������: 41 ]
فَلَمَّا جَآءَ السَّحَرَةُ قَالُوْا لِفِرْعَوْنَ اَىِٕنَّ لَنَا لَاَجْرًا اِنْ كُنَّا نَحْنُ الْغٰلِبِیْنَ﴿٤١ ﴾
সে বলল, ‘হ্যাঁ এবং নিশ্চয় তোমরা তখন আমার ঘনিষ্টজনদের অন্তর্ভুক্ত হবে’।
[ ������-���������'������: 42 ]
قَالَ نَعَمْ وَ اِنَّكُمْ اِذًا لَّمِنَ الْمُقَرَّبِیْنَ﴿٤٢ ﴾
মূসা তাদের বলল, ‘তোমরা যা নিক্ষেপ করার তা নিক্ষেপ কর’।
[ ������-���������'������: 43 ]
قَالَ لَهُمْ مُّوْسٰۤی اَلْقُوْا مَاۤ اَنْتُمْ مُّلْقُوْنَ﴿٤٣ ﴾
অতঃপর তারা তাদের রশি ও লাঠি নিক্ষেপ করল এবং বলল, ‘ফির‘আউনের মর্যাদার কসম! অবশ্যই আমরা বিজয়ী হব।’
[ ������-���������'������: 44 ]
فَاَلْقَوْا حِبَالَهُمْ وَ عِصِیَّهُمْ وَ قَالُوْا بِعِزَّةِ فِرْعَوْنَ اِنَّا لَنَحْنُ الْغٰلِبُوْنَ﴿٤٤ ﴾
তারপর মূসা তার লাঠি ফেলল, ফলে তৎক্ষণাৎ তা তাদের মিথ্যা প্রদর্শনীগুলো গ্রাস করে ফেলল।
[ ������-���������'������: 45 ]
فَاَلْقٰی مُوْسٰی عَصَاهُ فَاِذَا هِیَ تَلْقَفُ مَا یَاْفِكُوْنَۚۖ﴿٤٥ ﴾
ফলে যাদুকররা সিজদাবনত হয়ে পড়ল।
[ ������-���������'������: 46 ]
فَاُلْقِیَ السَّحَرَةُ سٰجِدِیْنَۙ﴿٤٦ ﴾
তারা বলল, ‘আমরা ঈমান আনলাম সকল সৃষ্টির রবের প্রতি’।
[ ������-���������'������: 47 ]
قَالُوْۤا اٰمَنَّا بِرَبِّ الْعٰلَمِیْنَۙ﴿٤٧ ﴾
‘মূসা ও হারুনের রব’।
[ ������-���������'������: 48 ]
رَبِّ مُوْسٰی وَ هٰرُوْنَ﴿٤٨ ﴾
ফির‘আউন বলল, ‘আমি তোমাদেরকে অনুমতি দেয়ার পূর্বেই তোমরা তার প্রতি ঈমান আনলে? নিশ্চয় সে তোমাদের গুরু যে তোমাদের যাদু শিক্ষা দিয়েছে। অতএব অচিরেই তোমরা জানতে পারবে। আমি অবশ্যই তোমাদের হাতসমূহ ও তোমাদের পাসমূহ বিপরীত দিক থেকে কেটে ফেলব এবং অবশ্যই তোমাদের সকলকে শূলিবিদ্ধ করব’।
[ ������-���������'������: 49 ]
قَالَ اٰمَنْتُمْ لَهٗ قَبْلَ اَنْ اٰذَنَ لَكُمْ ۚ اِنَّهٗ لَكَبِیْرُكُمُ الَّذِیْ عَلَّمَكُمُ السِّحْرَ ۚ فَلَسَوْفَ تَعْلَمُوْنَ ؕ۬ لَاُقَطِّعَنَّ اَیْدِیَكُمْ وَ اَرْجُلَكُمْ مِّنْ خِلَافٍ وَّ لَاُصَلِّبَنَّكُمْ اَجْمَعِیْنَۚ﴿٤٩ ﴾
তারা বলল, ‘কোন ক্ষতি নেই তাতে। অবশ্যই আমরা তো আমাদের রবের দিকেই ফিরে যাব।’
[ ������-���������'������: 50 ]
قَالُوْا لَا ضَیْرَ ؗ اِنَّاۤ اِلٰی رَبِّنَا مُنْقَلِبُوْنَۚ﴿٥٠ ﴾
‘আমরা আশা করি যে, আমাদের রব আমাদের অপরাধসমূহ ক্ষমা করে দেবেন, কারণ আমরা মুমিনদের মধ্যে প্রথম।’
[ ������-���������'������: 51 ]
اِنَّا نَطْمَعُ اَنْ یَّغْفِرَ لَنَا رَبُّنَا خَطٰیٰنَاۤ اَنْ كُنَّاۤ اَوَّلَ الْمُؤْمِنِیْنَؕ۠﴿٥١ ﴾
আর আমি মূসার প্রতি এ মর্মে ওহী পাঠিয়েছিলাম যে, ‘আমার বান্দাদের নিয়ে রাত্রিকালে যাত্রা শুরু কর, নিশ্চয়ই তোমাদের পিছু নেয়া হবে।’
[ ������-���������'������: 52 ]
وَ اَوْحَیْنَاۤ اِلٰی مُوْسٰۤی اَنْ اَسْرِ بِعِبَادِیْۤ اِنَّكُمْ مُّتَّبَعُوْنَ﴿٥٢ ﴾
অতঃপর ফির‘আউন নগরে- নগরে একত্রকারীদেরকে পাঠাল।
[ ������-���������'������: 53 ]
فَاَرْسَلَ فِرْعَوْنُ فِی الْمَدَآىِٕنِ حٰشِرِیْنَۚ﴿٥٣ ﴾
‘নিশ্চয়ই এরা তো ক্ষুদ্র একটি দল।’
[ ������-���������'������: 54 ]
اِنَّ هٰۤؤُلَآءِ لَشِرْذِمَةٌ قَلِیْلُوْنَۙ﴿٥٤ ﴾
‘আর এরা অবশ্যই আমাদের ক্রোধের উদ্রেক ঘটিয়েছে।’
[ ������-���������'������: 55 ]
وَ اِنَّهُمْ لَنَا لَغَآىِٕظُوْنَۙ﴿٥٥ ﴾
‘আর আমরা সবাই তো যথেষ্ট সতর্ক।’
[ ������-���������'������: 56 ]
وَ اِنَّا لَجَمِیْعٌ حٰذِرُوْنَؕ﴿٥٦ ﴾
তারপর আমি তাদেরকে উদ্যানমালা ও ঝর্ণাধারাসমূহ থেকে বের করে আনলাম।
[ ������-���������'������: 57 ]
فَاَخْرَجْنٰهُمْ مِّنْ جَنّٰتٍ وَّ عُیُوْنٍۙ﴿٥٧ ﴾
আর ধনভান্ডার ও মর্যাদাপূর্ণ অবস্থান থেকে।
[ ������-���������'������: 58 ]
وَّ كُنُوْزٍ وَّ مَقَامٍ كَرِیْمٍۙ﴿٥٨ ﴾
এরূপই এবং আমি বনী ইসরাঈলকে এসবের ওয়ারিস বানিয়েছিলাম।
[ ������-���������'������: 59 ]
كَذٰلِكَ ؕ وَ اَوْرَثْنٰهَا بَنِیْۤ اِسْرَآءِیْلَؕ﴿٥٩ ﴾
তারপর তারা সূর্যোদয়ের প্রাক্কালে তাদের পিছু নিল।
[ ������-���������'������: 60 ]
فَاَتْبَعُوْهُمْ مُّشْرِقِیْنَ﴿٦٠ ﴾
অতঃপর যখন উভয় দল পরস্পরকে দেখল, তখন মূসার সাথীরা বলল, অবশ্যই ‘আমরা ধরা পড়ে গেলাম!’
[ ������-���������'������: 61 ]
فَلَمَّا تَرَآءَ الْجَمْعٰنِ قَالَ اَصْحٰبُ مُوْسٰۤی اِنَّا لَمُدْرَكُوْنَۚ﴿٦١ ﴾
মূসা বলল, ‘কক্ষনো নয়; আমার সাথে আমার রব রয়েছেন। নিশ্চয় অচিরেই তিনি আমাকে পথনির্দেশ দেবেন’।
[ ������-���������'������: 62 ]
قَالَ كَلَّا ۚ اِنَّ مَعِیَ رَبِّیْ سَیَهْدِیْنِ﴿٦٢ ﴾
অতঃপর আমি মূসার প্রতি ওহী পাঠালাম, ‘তোমার লাঠি দ্বারা সমুদ্রে আঘাত কর।’ ফলে তা বিভক্ত হয়ে গেল। তারপর প্রত্যেক ভাগ বিশাল পাহাড়সদৃশ হয়ে গেল।
[ ������-���������'������: 63 ]
فَاَوْحَیْنَاۤ اِلٰی مُوْسٰۤی اَنِ اضْرِبْ بِّعَصَاكَ الْبَحْرَ ؕ فَانْفَلَقَ فَكَانَ كُلُّ فِرْقٍ كَالطَّوْدِ الْعَظِیْمِۚ﴿٦٣ ﴾
আর আমি অপর দলটিকে সেই জায়গায় নিকটবর্তী করলাম,
[ ������-���������'������: 64 ]
وَ اَزْلَفْنَا ثَمَّ الْاٰخَرِیْنَۚ﴿٦٤ ﴾
আর আমি মূসা ও তার সাথে যারা ছিল সকলকে উদ্ধার করলাম,
[ ������-���������'������: 65 ]
وَ اَنْجَیْنَا مُوْسٰی وَ مَنْ مَّعَهٗۤ اَجْمَعِیْنَۚ﴿٦٥ ﴾
তারপর অপর দলটিকে ডুবিয়ে দিলাম।
[ ������-���������'������: 66 ]
ثُمَّ اَغْرَقْنَا الْاٰخَرِیْنَؕ﴿٦٦ ﴾
নিশ্চয় এর মধ্যে রয়েছে নিদর্শন। আর তাদের অধিকাংশই মুমিন নয়।
[ ������-���������'������: 67 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿٦٧ ﴾
আর নিশ্চয় তোমার রব তো মহাপরাক্রমশালী, পরম দয়ালু।
[ ������-���������'������: 68 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿٦٨ ﴾
আর তুমি তাদের নিকট ইবরাহীমের ঘটনা বর্ণনা কর,
[ ������-���������'������: 69 ]
وَ اتْلُ عَلَیْهِمْ نَبَاَ اِبْرٰهِیْمَۘ﴿٦٩ ﴾
যখন সে তার পিতা ও তার কওমকে বলেছিল, ‘তোমরা কিসের ইবাদাত কর?’
[ ������-���������'������: 70 ]
اِذْ قَالَ لِاَبِیْهِ وَ قَوْمِهٖ مَا تَعْبُدُوْنَ﴿٧٠ ﴾
তারা বলল, ‘আমরা মূর্তির পূজা করি। অতঃপর এগুলোর পূজায় আমরা নিষ্ঠার সাথে রত থাকি’।
[ ������-���������'������: 71 ]
قَالُوْا نَعْبُدُ اَصْنَامًا فَنَظَلُّ لَهَا عٰكِفِیْنَ﴿٧١ ﴾
সে বলল, ‘যখন তোমরা ডাক তখন তারা কি তোমাদের সে ডাক শুনতে পায়?’
[ ������-���������'������: 72 ]
قَالَ هَلْ یَسْمَعُوْنَكُمْ اِذْ تَدْعُوْنَۙ﴿٧٢ ﴾
‘অথবা তারা কি তোমাদের উপকার কিংবা ক্ষতি করতে পারে’?
[ ������-���������'������: 73 ]
اَوْ یَنْفَعُوْنَكُمْ اَوْ یَضُرُّوْنَ﴿٧٣ ﴾
তারা বলল, ‘বরং আমরা আমাদের পিতৃপুরুষদের পেয়েছি, তারা এরূপই করত’।
[ ������-���������'������: 74 ]
قَالُوْا بَلْ وَجَدْنَاۤ اٰبَآءَنَا كَذٰلِكَ یَفْعَلُوْنَ﴿٧٤ ﴾
ইবরাহীম বলল, ‘তোমরা কি তাদের সম্পর্কে ভেবে দেখেছ, তোমরা যাদের পূজা কর’।
[ ������-���������'������: 75 ]
قَالَ اَفَرَءَیْتُمْ مَّا كُنْتُمْ تَعْبُدُوْنَۙ﴿٧٥ ﴾
‘তোমরা এবং তোমাদের অতীত পিতৃপুরুষেরা?’
[ ������-���������'������: 76 ]
اَنْتُمْ وَ اٰبَآؤُكُمُ الْاَقْدَمُوْنَؗۖ﴿٧٦ ﴾
‘সকল সৃষ্টির রব ছাড়া অবশ্যই তারা আমার শত্রু’।
[ ������-���������'������: 77 ]
فَاِنَّهُمْ عَدُوٌّ لِّیْۤ اِلَّا رَبَّ الْعٰلَمِیْنَۙ﴿٧٧ ﴾
‘যিনি আমাকে সৃষ্টি করেছেন। অতঃপর তিনিই আমাকে হিদায়াত দিয়েছেন।’
[ ������-���������'������: 78 ]
الَّذِیْ خَلَقَنِیْ فَهُوَ یَهْدِیْنِۙ﴿٧٨ ﴾
‘আর যিনি আমাকে খাওয়ান এবং পান করান’।
[ ������-���������'������: 79 ]
وَ الَّذِیْ هُوَ یُطْعِمُنِیْ وَ یَسْقِیْنِۙ﴿٧٩ ﴾
‘আর যখন আমি অসুস্থ হই, তখন যিনি আমাকে আরোগ্য করেন’।
[ ������-���������'������: 80 ]
وَ اِذَا مَرِضْتُ فَهُوَ یَشْفِیْنِ۪ۙ﴿٨٠ ﴾
‘আর যিনি আমার মৃত্যু ঘটাবেন তারপর আমাকে জীবিত করবেন’।
[ ������-���������'������: 81 ]
وَ الَّذِیْ یُمِیْتُنِیْ ثُمَّ یُحْیِیْنِۙ﴿٨١ ﴾
‘আর যিনি আশা করি, বিচার দিবসে আমার ত্রুটি-বিচ্যুতি ক্ষমা করে দেবেন’।
[ ������-���������'������: 82 ]
وَ الَّذِیْۤ اَطْمَعُ اَنْ یَّغْفِرَ لِیْ خَطِیْٓـَٔتِیْ یَوْمَ الدِّیْنِؕ﴿٨٢ ﴾
‘হে আমার রব, আমাকে প্রজ্ঞা দান করুন এবং আমাকে সৎকর্মশীলদের সাথে শামিল করে দিন’।
[ ������-���������'������: 83 ]
رَبِّ هَبْ لِیْ حُكْمًا وَّ اَلْحِقْنِیْ بِالصّٰلِحِیْنَۙ﴿٨٣ ﴾
‘এবং পরবর্তীদের মধ্যে আমার সুনাম-সুখ্যাতি অব্যাহত রাখুন’,
[ ������-���������'������: 84 ]
وَ اجْعَلْ لِّیْ لِسَانَ صِدْقٍ فِی الْاٰخِرِیْنَۙ﴿٨٤ ﴾
‘আর আপনি আমাকে সুখময় জান্নাতের ওয়ারিসদের অন্তর্ভুক্ত করুন’।
[ ������-���������'������: 85 ]
وَ اجْعَلْنِیْ مِنْ وَّرَثَةِ جَنَّةِ النَّعِیْمِۙ﴿٨٥ ﴾
‘আর আমার পিতাকে ক্ষমা করুন; নিশ্চয় সে পথভ্রষ্টদের অন্তর্ভুক্ত ছিল’।
[ ������-���������'������: 86 ]
وَ اغْفِرْ لِاَبِیْۤ اِنَّهٗ كَانَ مِنَ الضَّآلِّیْنَۙ﴿٨٦ ﴾
‘আর যেদিন পুনরুত্থিত করা হবে সেদিন আমাকে লাঞ্ছিত করবেন না’।
[ ������-���������'������: 87 ]
وَ لَا تُخْزِنِیْ یَوْمَ یُبْعَثُوْنَۙ﴿٨٧ ﴾
‘যেদিন ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি কোন উপকারে আসবে না’।
[ ������-���������'������: 88 ]
یَوْمَ لَا یَنْفَعُ مَالٌ وَّ لَا بَنُوْنَۙ﴿٨٨ ﴾
‘তবে যে আল্লাহর কাছে আসবে সুস্থ অন্তরে’।
[ ������-���������'������: 89 ]
اِلَّا مَنْ اَتَی اللّٰهَ بِقَلْبٍ سَلِیْمٍؕ﴿٨٩ ﴾
আর মুত্তাকীদের জন্য জান্নাত নিকটবর্তী করা হবে,
[ ������-���������'������: 90 ]
وَ اُزْلِفَتِ الْجَنَّةُ لِلْمُتَّقِیْنَۙ﴿٩٠ ﴾
এবং পথভ্রষ্টকারীদের জন্য জাহান্নাম উন্মোচিত করা হবে।
[ ������-���������'������: 91 ]
وَ بُرِّزَتِ الْجَحِیْمُ لِلْغٰوِیْنَۙ﴿٩١ ﴾
আর তাদেরকে বলা হবে, ‘তারা কোথায় যাদের তোমরা ইবাদাত করতে’?
[ ������-���������'������: 92 ]
وَ قِیْلَ لَهُمْ اَیْنَمَا كُنْتُمْ تَعْبُدُوْنَۙ﴿٩٢ ﴾
আল্লাহ ছাড়া? তারা কি তোমাদেরকে সাহায্য করছে, না নিজেদের সাহায্য করতে পারছে?
[ ������-���������'������: 93 ]
مِنْ دُوْنِ اللّٰهِ ؕ هَلْ یَنْصُرُوْنَكُمْ اَوْ یَنْتَصِرُوْنَؕ﴿٩٣ ﴾
অতঃপর তাদেরকে এবং পথভ্রষ্টকারীদেরকে উপুড় করে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে,
[ ������-���������'������: 94 ]
فَكُبْكِبُوْا فِیْهَا هُمْ وَ الْغَاوٗنَۙ﴿٩٤ ﴾
আর ইবলীসের সকল সৈন্যবাহিনীকে।
[ ������-���������'������: 95 ]
وَ جُنُوْدُ اِبْلِیْسَ اَجْمَعُوْنَؕ﴿٩٥ ﴾
সেখানে পরস্পর ঝগড়া করতে গিয়ে তারা বলবে,
[ ������-���������'������: 96 ]
قَالُوْا وَ هُمْ فِیْهَا یَخْتَصِمُوْنَۙ﴿٩٦ ﴾
আল্লাহর কসম! আমরা তো সুস্পষ্ট পথভ্রষ্টতায় নিমজ্জিত ছিলাম',
[ ������-���������'������: 97 ]
تَاللّٰهِ اِنْ كُنَّا لَفِیْ ضَلٰلٍ مُّبِیْنٍۙ﴿٩٧ ﴾
‘যখন আমরা তোমাদেরকে সকল সৃষ্টির রবের সমকক্ষ বানাতাম’।
[ ������-���������'������: 98 ]
اِذْ نُسَوِّیْكُمْ بِرَبِّ الْعٰلَمِیْنَ﴿٩٨ ﴾
‘আর অপরাধীরাই শুধু আমাদেরকে পথভ্রষ্ট করেছিল’;
[ ������-���������'������: 99 ]
وَ مَاۤ اَضَلَّنَاۤ اِلَّا الْمُجْرِمُوْنَ﴿٩٩ ﴾
‘অতএব, আমাদের কোন সুপারিশকারী নেই’।
[ ������-���������'������: 100 ]
فَمَا لَنَا مِنْ شَافِعِیْنَۙ﴿١٠٠ ﴾
‘এবং কোন অন্তরঙ্গ বন্ধুও নেই’।
[ ������-���������'������: 101 ]
وَ لَا صَدِیْقٍ حَمِیْمٍ﴿١٠١ ﴾
‘হায়, আমাদের যদি আরেকটি সুযোগ হত, তবে আমরা মুমিনদের অর্ন্তভুক্ত হতাম’।
[ ������-���������'������: 102 ]
فَلَوْ اَنَّ لَنَا كَرَّةً فَنَكُوْنَ مِنَ الْمُؤْمِنِیْنَ﴿١٠٢ ﴾
নিশ্চয় এতে রয়েছে নিদর্শন, আর তাদের অধিকাংশ মুমিন নয়।
[ ������-���������'������: 103 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٠٣ ﴾
আর নিশ্চয় তোমার রব, তিনি তো মহাপরাক্রমশালী, পরম দয়ালু।
[ ������-���������'������: 104 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ۠﴿١٠٤ ﴾
নূহ-এর কওম রাসূলদেরকে অস্বীকার করেছিল।
[ ������-���������'������: 105 ]
كَذَّبَتْ قَوْمُ نُوْحِ ِ۟الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٠٥ ﴾
যখন তাদের ভাই নূহ তাদেরকে বলেছিল, ‘তোমরা কি তাকওয়া অবলম্বন করবে না’?
[ ������-���������'������: 106 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ اَخُوْهُمْ نُوْحٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٠٦ ﴾
‘নিশ্চয় আমি তোমাদের জন্য একজন বিশ্বস্ত রাসূল’।
[ ������-���������'������: 107 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٠٧ ﴾
‘সুতরাং তোমরা আল্লাহর তাকওয়া অবলম্বন কর এবং আমার আনুগত্য কর’।
[ ������-���������'������: 108 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٠٨ ﴾
‘আর এর উপর আমি তোমাদের কাছে কোন পারিশ্রমিক চাই না; আমার প্রতিদান শুধু সৃষ্টিকুলের রবের নিকট’।
[ ������-���������'������: 109 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَۚ﴿١٠٩ ﴾
‘সুতরাং তোমরা আল্লাহর তাকওয়া অবলম্বন কর এবং আমার আনুগত্য কর’।
[ ������-���������'������: 110 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِؕ﴿١١٠ ﴾
‘তারা বলল, ‘আমরা কি তোমার প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করব, অথচ নিম্নশ্রেণীর লোকেরা তোমাকে অনুসরণ করছে’?
[ ������-���������'������: 111 ]
قَالُوْۤا اَنُؤْمِنُ لَكَ وَ اتَّبَعَكَ الْاَرْذَلُوْنَؕ﴿١١١ ﴾
নূহ বলল, ‘তারা কি করে তা জানা আমার কী প্রয়োজন’?
[ ������-���������'������: 112 ]
قَالَ وَ مَا عِلْمِیْ بِمَا كَانُوْا یَعْمَلُوْنَۚ﴿١١٢ ﴾
‘তাদের হিসাব গ্রহণ তো কেবল আমার রবের দায়িত্বে, যদি তোমরা জানতে’।
[ ������-���������'������: 113 ]
اِنْ حِسَابُهُمْ اِلَّا عَلٰی رَبِّیْ لَوْ تَشْعُرُوْنَۚ﴿١١٣ ﴾
‘আর আমি তো মুমিনদেরকে তাড়িয়ে দেয়ার নই’।
[ ������-���������'������: 114 ]
وَ مَاۤ اَنَا بِطَارِدِ الْمُؤْمِنِیْنَۚ﴿١١٤ ﴾
‘আমি তো কেবল সুস্পষ্ট সতর্ককারী’।
[ ������-���������'������: 115 ]
اِنْ اَنَا اِلَّا نَذِیْرٌ مُّبِیْنٌؕ﴿١١٥ ﴾
তারা বলল, ‘হে নূহ, তুমি যদি বিরত না হও তবে অবশ্যই তুমি প্রস্তরাঘাতে নিহতদের অন্তর্ভুক্ত হবে’।
[ ������-���������'������: 116 ]
قَالُوْا لَىِٕنْ لَّمْ تَنْتَهِ یٰنُوْحُ لَتَكُوْنَنَّ مِنَ الْمَرْجُوْمِیْنَؕ﴿١١٦ ﴾
নূহ বলল, ‘হে আমার রব, আমার কওম আমাকে অস্বীকার করেছে’;
[ ������-���������'������: 117 ]
قَالَ رَبِّ اِنَّ قَوْمِیْ كَذَّبُوْنِۚۖ﴿١١٧ ﴾
‘সুতরাং আপনি আমার ও তাদের মধ্যে ফয়সালা করে দিন আর আমাকে ও আমার সাথে যেসব মুমিন, আছে তাদেরকে রক্ষা করুন’।
[ ������-���������'������: 118 ]
فَافْتَحْ بَیْنِیْ وَ بَیْنَهُمْ فَتْحًا وَّ نَجِّنِیْ وَ مَنْ مَّعِیَ مِنَ الْمُؤْمِنِیْنَ﴿١١٨ ﴾
অতঃপর আমি তাকে এবং তার সাথে যারা বোঝাই নৌকায় ছিল তাদেরকে নাজাত দিলাম।
[ ������-���������'������: 119 ]
فَاَنْجَیْنٰهُ وَ مَنْ مَّعَهٗ فِی الْفُلْكِ الْمَشْحُوْنِۚ﴿١١٩ ﴾
তারপর বাকীদের ডুবিয়ে দিলাম।
[ ������-���������'������: 120 ]
ثُمَّ اَغْرَقْنَا بَعْدُ الْبٰقِیْنَؕ﴿١٢٠ ﴾
নিশ্চয় এতে রয়েছে নিদর্শন, আর তাদের বেশীর ভাগ মুমিন ছিল না।
[ ������-���������'������: 121 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٢١ ﴾
আর নিশ্চয় তোমার রব, তিনি তো মহাপরাক্রমশালী, পরম দয়ালু।
[ ������-���������'������: 122 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ۠﴿١٢٢ ﴾
‘আদ জাতি রাসূলগণকে অস্বীকার করেছিল,
[ ������-���������'������: 123 ]
كَذَّبَتْ عَادُ ِ۟الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٢٣ ﴾
যখন তাদের ভাই হূদ তাদেরকে বলেছিল, ‘তোমরা কি তাকওয়া অবলম্বন করবে না’?
[ ������-���������'������: 124 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ اَخُوْهُمْ هُوْدٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٢٤ ﴾
‘নিশ্চয় আমি তোমাদের জন্য একজন বিশ্বস্ত রাসূল’।
[ ������-���������'������: 125 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٢٥ ﴾
‘সুতরাং আল্লাহর তাকওয়া অবলম্বন কর এবং আমার আনুগত্য কর’।
[ ������-���������'������: 126 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٢٦ ﴾
‘আর এর উপর আমি তোমাদের কাছে কোন পারিশ্রমিক চাই না; আমার প্রতিদান কেবল সৃষ্টিকুলের রবের নিকট’।
[ ������-���������'������: 127 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٢٧ ﴾
‘তোমরা কি প্রতিটি উঁচু স্থানে বেহুদা স্তম্ভ নির্মাণ করছ’?
[ ������-���������'������: 128 ]
اَتَبْنُوْنَ بِكُلِّ رِیْعٍ اٰیَةً تَعْبَثُوْنَ﴿١٢٨ ﴾
‘আর তোমরা সুদৃঢ় প্রাসাদ নির্মাণ করছ, যেন তোমরা স্থায়ী হবে’।
[ ������-���������'������: 129 ]
وَ تَتَّخِذُوْنَ مَصَانِعَ لَعَلَّكُمْ تَخْلُدُوْنَۚ﴿١٢٩ ﴾
‘আর তোমরা যখন কাউকে পাকড়াও কর, পাকড়াও কর স্বেচ্ছাচারী হয়ে’।
[ ������-���������'������: 130 ]
وَ اِذَا بَطَشْتُمْ بَطَشْتُمْ جَبَّارِیْنَۚ﴿١٣٠ ﴾
‘সুতরাং আল্লাহকে ভয় কর এবং আমাকে অনুসরণ কর’।
[ ������-���������'������: 131 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٣١ ﴾
'আর তাঁকে ভয় কর যিনি তোমাদেরকে সাহায্য করেছেন এমন কিছু দিয়ে, যা তোমরা জান'।
[ ������-���������'������: 132 ]
وَ اتَّقُوا الَّذِیْۤ اَمَدَّكُمْ بِمَا تَعْلَمُوْنَۚ﴿١٣٢ ﴾
‘তিনি তোমাদেরকে সাহায্য করেছেন চতুষ্পদ জন্তু ও সন্তান-সন্ততি দ্বারা’,
[ ������-���������'������: 133 ]
اَمَدَّكُمْ بِاَنْعَامٍ وَّ بَنِیْنَۚۙ﴿١٣٣ ﴾
‘আর উদ্যান ও ঝর্ণা দ্বারা’।
[ ������-���������'������: 134 ]
وَ جَنّٰتٍ وَّ عُیُوْنٍۚ﴿١٣٤ ﴾
‘নিশ্চয় আমি তোমাদের উপর এক মহাদিবসের আযাবের ভয় করছি’।
[ ������-���������'������: 135 ]
اِنِّیْۤ اَخَافُ عَلَیْكُمْ عَذَابَ یَوْمٍ عَظِیْمٍؕ﴿١٣٥ ﴾
তারা বলল, ‘তুমি আমাদের উপদেশ দাও অথবা না দাও, উভয়ই আমাদের জন্য সমান’।
[ ������-���������'������: 136 ]
قَالُوْا سَوَآءٌ عَلَیْنَاۤ اَوَ عَظْتَ اَمْ لَمْ تَكُنْ مِّنَ الْوٰعِظِیْنَۙ﴿١٣٦ ﴾
‘এটি তো পূর্ববর্তীদেরই চরিত্র,।
[ ������-���������'������: 137 ]
اِنْ هٰذَاۤ اِلَّا خُلُقُ الْاَوَّلِیْنَۙ﴿١٣٧ ﴾
‘আর আমরা আযাবপ্রাপ্তদের অন্তর্ভুক্ত হব না’।
[ ������-���������'������: 138 ]
وَ مَا نَحْنُ بِمُعَذَّبِیْنَۚ﴿١٣٨ ﴾
অতঃপর তারা তাকে অস্বীকার করল, ফলে তাদেরকে আমি ধ্বংস করে দিলাম; নিশ্চয় এতে নিদর্শন রয়েছে। আর তাদের অধিকাংশ মুমিন ছিল না।
[ ������-���������'������: 139 ]
فَكَذَّبُوْهُ فَاَهْلَكْنٰهُمْ ؕ اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٣٩ ﴾
আর নিশ্চয় তোমার রব তিনি মহাপরাক্রমশালী, পরম দয়ালু।
[ ������-���������'������: 140 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿١٤٠ ﴾
সামূদ জাতি রাসুলদেরকে অস্বীকার করেছিল,
[ ������-���������'������: 141 ]
كَذَّبَتْ ثَمُوْدُ الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٤١ ﴾
যখন তাদের ভাই সালিহ তাদেরকে বলেছিল, ‘তোমরা কি তাকওয়া অবলম্বন করবে না’?
[ ������-���������'������: 142 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ اَخُوْهُمْ صٰلِحٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٤٢ ﴾
‘নিশ্চয় আমি তোমাদের জন্য এক বিশ্বস্ত রাসূল’;
[ ������-���������'������: 143 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٤٣ ﴾
‘সুতরাং তোমরা আল্লাহর তাকওয়া অবলম্বন কর এবং আমার আনুগত্য কর’।
[ ������-���������'������: 144 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٤٤ ﴾
‘আর এর উপর আমি তোমাদের কাছে কোন পারিশ্রমিক চাই না; আমার প্রতিদান কেবল সৃষ্টিকুলের রবের নিকট’।
[ ������-���������'������: 145 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٤٥ ﴾
‘তোমাদেরকে কি এখানে যা আছে তাতে নিরাপদে ছেড়ে দেয়া হবে’?
[ ������-���������'������: 146 ]
اَتُتْرَكُوْنَ فِیْ مَا هٰهُنَاۤ اٰمِنِیْنَۙ﴿١٤٦ ﴾
‘উদ্যান ও ঝর্ণায়’,
[ ������-���������'������: 147 ]
فِیْ جَنّٰتٍ وَّ عُیُوْنٍۙ﴿١٤٧ ﴾
‘আর ক্ষেত-খামার ও কোমল শীষবিশিষ্ট খেজুর বাগানে’?
[ ������-���������'������: 148 ]
وَّ زُرُوْعٍ وَّ نَخْلٍ طَلْعُهَا هَضِیْمٌۚ﴿١٤٨ ﴾
‘আর তোমরা নৈপুণ্যের সাথে পাহাড় কেটে বাড়ী নির্মাণ করছ’।
[ ������-���������'������: 149 ]
وَ تَنْحِتُوْنَ مِنَ الْجِبَالِ بُیُوْتًا فٰرِهِیْنَۚ﴿١٤٩ ﴾
‘সুতরাং আল্লাহর তাকওয়া অবলম্বন কর এবং আমার আনুগত্য কর’।
[ ������-���������'������: 150 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٥٠ ﴾
‘এবং সীমালংঘনকারীদের নির্দেশের আনুগত্য করো না’-
[ ������-���������'������: 151 ]
وَ لَا تُطِیْعُوْۤا اَمْرَ الْمُسْرِفِیْنَۙ﴿١٥١ ﴾
‘যারা পৃথিবীতে ফাসাদ সৃষ্টি করে এবং শান্তি স্থাপন করে না’।
[ ������-���������'������: 152 ]
الَّذِیْنَ یُفْسِدُوْنَ فِی الْاَرْضِ وَ لَا یُصْلِحُوْنَ﴿١٥٢ ﴾
তারা বলল, ‘তুমিতো যাদুগ্রস্তদের একজন।
[ ������-���������'������: 153 ]
قَالُوْۤا اِنَّمَاۤ اَنْتَ مِنَ الْمُسَحَّرِیْنَۚ﴿١٥٣ ﴾
‘তুমি তো কেবল আমাদের মত মানুষ, সুতরাং তুমি যদি সত্যবাদী হও তবে কোন নিদর্শন নিয়ে এসো’।
[ ������-���������'������: 154 ]
مَاۤ اَنْتَ اِلَّا بَشَرٌ مِّثْلُنَا ۖۚ فَاْتِ بِاٰیَةٍ اِنْ كُنْتَ مِنَ الصّٰدِقِیْنَ﴿١٥٤ ﴾
সালিহ বলল, ‘এটি একটি উষ্ট্রী; তার জন্য পানি পানের পালা একদিন আর তোমাদের পানি পানের পালা আরেক নির্দিষ্ট দিনে’।
[ ������-���������'������: 155 ]
قَالَ هٰذِهٖ نَاقَةٌ لَّهَا شِرْبٌ وَّ لَكُمْ شِرْبُ یَوْمٍ مَّعْلُوْمٍۚ﴿١٥٥ ﴾
‘আর তোমরা তাকে কোন অনিষ্ট কিছু করো না; যদি কর তবে এক মহাদিবসের আযাব তোমাদেরকে পেয়ে বসবে’।
[ ������-���������'������: 156 ]
وَ لَا تَمَسُّوْهَا بِسُوْٓءٍ فَیَاْخُذَكُمْ عَذَابُ یَوْمٍ عَظِیْمٍ﴿١٥٦ ﴾
অতঃপর তারা সেটি জবেহ করল; ফলে তারা অনুতপ্ত হল।
[ ������-���������'������: 157 ]
فَعَقَرُوْهَا فَاَصْبَحُوْا نٰدِمِیْنَۙ﴿١٥٧ ﴾
অতএব আযাব তাদেরকে পাকড়াও করল, নিশ্চয়ই এতে নিদর্শন রয়েছে, আর তাদের অধিকাংশ মুমিন ছিল না।
[ ������-���������'������: 158 ]
فَاَخَذَهُمُ الْعَذَابُ ؕ اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٥٨ ﴾
আর নিশ্চয় তোমার রব, তিনি তো মহাপরাক্রমশালী, পরম দয়ালু্।
[ ������-���������'������: 159 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿١٥٩ ﴾
লূতের সম্প্রদায় রাসূলদেরকে অস্বীকার করেছিল।
[ ������-���������'������: 160 ]
كَذَّبَتْ قَوْمُ لُوْطِ ِ۟الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٦٠ ﴾
যখন তাদেরকে তাদের ভাই লূত বলেছিল, ‘তোমরা কি তাকওয়া অবলম্বন করবে না’?
[ ������-���������'������: 161 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ اَخُوْهُمْ لُوْطٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٦١ ﴾
‘নিশ্চয় আমি তোমাদের জন্য এক বিশ্বস্ত রাসূল’।
[ ������-���������'������: 162 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٦٢ ﴾
‘সুতরাং তোমরা আল্লাহর তাকওয়া অবলম্বন কর এবং আমার আনুগত্য কর’।
[ ������-���������'������: 163 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٦٣ ﴾
‘আর আমি এর উপর তোমাদের নিকট কোন প্রতিদান চাই না। আমার প্রতিদান কেবল সৃষ্টিকুলের রবের নিকট’।
[ ������-���������'������: 164 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٦٤ ﴾
‘সৃষ্টিকুলের মধ্যে তোমরা কি কেবল পুরুষদের সাথে উপগত হও’?
[ ������-���������'������: 165 ]
اَتَاْتُوْنَ الذُّكْرَانَ مِنَ الْعٰلَمِیْنَۙ﴿١٦٥ ﴾
‘আর তোমাদের রব তোমাদের জন্য যে স্ত্রীদের সৃষ্টি করেছেন তাদেরকে তোমরা ত্যাগ কর, বরং তোমরা এক সীমালংঘনকারী সম্প্রদায়’।
[ ������-���������'������: 166 ]
وَ تَذَرُوْنَ مَا خَلَقَ لَكُمْ رَبُّكُمْ مِّنْ اَزْوَاجِكُمْ ؕ بَلْ اَنْتُمْ قَوْمٌ عٰدُوْنَ﴿١٦٦ ﴾
তারা বলল, ‘হে লূত, তুমি যদি বিরত না হও, তাহলে তুমি অবশ্যই বহিস্কৃতদের অন্তর্ভুক্ত হবে’।
[ ������-���������'������: 167 ]
قَالُوْا لَىِٕنْ لَّمْ تَنْتَهِ یٰلُوْطُ لَتَكُوْنَنَّ مِنَ الْمُخْرَجِیْنَ﴿١٦٧ ﴾
লূত বলল, ‘নিশ্চয় আমি তোমাদের কাজকে ঘৃণা করি’।
[ ������-���������'������: 168 ]
قَالَ اِنِّیْ لِعَمَلِكُمْ مِّنَ الْقَالِیْنَؕ﴿١٦٨ ﴾
‘হে আমার রব, তারা যা করছে, তা থেকে আমাকে ও আমার পরিবার-পরিজনকে তুমি রক্ষা কর’।
[ ������-���������'������: 169 ]
رَبِّ نَجِّنِیْ وَ اَهْلِیْ مِمَّا یَعْمَلُوْنَ﴿١٦٩ ﴾
অতঃপর আমি তাকে ও তার পরিবার-পরিজন সবাইকে রক্ষা করলাম।
[ ������-���������'������: 170 ]
فَنَجَّیْنٰهُ وَ اَهْلَهٗۤ اَجْمَعِیْنَۙ﴿١٧٠ ﴾
পেছনে অবস্থানকারিণী এক বৃদ্ধা ছাড়া।
[ ������-���������'������: 171 ]
اِلَّا عَجُوْزًا فِی الْغٰبِرِیْنَۚ﴿١٧١ ﴾
তারপর অন্যদেরকে আমি ধ্বংস করে দিলাম।
[ ������-���������'������: 172 ]
ثُمَّ دَمَّرْنَا الْاٰخَرِیْنَۚ﴿١٧٢ ﴾
আর আমি তাদের উপর শিলাবৃষ্টি বর্ষণ করলাম। সুতরাং সেই বৃষ্টি ভয় প্রদর্শিতদের জন্য কতইনা মন্দ ছিল!
[ ������-���������'������: 173 ]
وَ اَمْطَرْنَا عَلَیْهِمْ مَّطَرًا ۚ فَسَآءَ مَطَرُ الْمُنْذَرِیْنَ﴿١٧٣ ﴾
নিশ্চয় এতে এক নিদর্শন রয়েছে। আর তাদের অধিকাংশই মুমিন ছিল না।
[ ������-���������'������: 174 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٧٤ ﴾
আর নিশ্চয় তোমার রব, তিনি তো মহাপরাক্রমশালী, পরম দয়ালু।
[ ������-���������'������: 175 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿١٧٥ ﴾
আইকার অধিবাসীরা রাসূলদেরকে অস্বীকার করেছিল।
[ ������-���������'������: 176 ]
كَذَّبَ اَصْحٰبُ لْـَٔیْكَةِ الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٧٦ ﴾
যখন শু‘আইব তাদেরকে বলল, ‘তোমরা কি তাকওয়া অবলম্বন করবে না’?
[ ������-���������'������: 177 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ شُعَیْبٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٧٧ ﴾
‘নিশ্চয় আমি তোমাদের জন্য এক বিশ্বস্ত রাসূল’।
[ ������-���������'������: 178 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٧٨ ﴾
‘সুতরাং তোমরা আল্লাহর তাকওয়া অবলম্বন কর এবং আমার আনুগত্য কর’।
[ ������-���������'������: 179 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٧٩ ﴾
‘আর আমি এর উপর তোমাদের নিকট কোন প্রতিদান চাই না। আমার প্রতিদান কেবল সৃষ্টিকুলের রবের নিকট’।
[ ������-���������'������: 180 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٨٠ ﴾
‘মাপ পূর্ণ করে দাও এবং যারা মাপে ঘাটতি করে, তোমরা তাদের অন্তর্ভুক্ত হয়ো না’।
[ ������-���������'������: 181 ]
اَوْفُوا الْكَیْلَ وَ لَا تَكُوْنُوْا مِنَ الْمُخْسِرِیْنَۚ﴿١٨١ ﴾
‘আর সঠিক দাঁড়ি পাল্লায় ওজন কর’।
[ ������-���������'������: 182 ]
وَزِنُوْا بِالْقِسْطَاسِ الْمُسْتَقِیْمِۚ﴿١٨٢ ﴾
'আর লোকদেরকে তাদের প্রাপ্যবস্তু কম দিও না এবং যমীনে ফাসাদ সৃষ্টি করো না'।
[ ������-���������'������: 183 ]
وَ لَا تَبْخَسُوا النَّاسَ اَشْیَآءَهُمْ وَ لَا تَعْثَوْا فِی الْاَرْضِ مُفْسِدِیْنَۚ﴿١٨٣ ﴾
‘যিনি তোমাদেরকে ও পূর্ববর্তী প্রজন্মসমূহকে সৃষ্টি করেছেন, তাঁর তাকওয়া অবলম্বন কর’।
[ ������-���������'������: 184 ]
وَ اتَّقُوا الَّذِیْ خَلَقَكُمْ وَ الْجِبِلَّةَ الْاَوَّلِیْنَؕ﴿١٨٤ ﴾
তারা বলল, ‘তুমি তো কেবল যাদুগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত’।
[ ������-���������'������: 185 ]
قَالُوْۤا اِنَّمَاۤ اَنْتَ مِنَ الْمُسَحَّرِیْنَۙ﴿١٨٥ ﴾
‘তুমি কেবল আমাদের মত একজন মানুষ। আর আমরা তোমাকে অবশ্যই মিথ্যাবাদীদের অন্তর্ভুক্ত বলে মনে করি’।
[ ������-���������'������: 186 ]
وَ مَاۤ اَنْتَ اِلَّا بَشَرٌ مِّثْلُنَا وَ اِنْ نَّظُنُّكَ لَمِنَ الْكٰذِبِیْنَۚ﴿١٨٦ ﴾
‘অতএব, তুমি যদি সত্যবাদী হও, তবে আসমান থেকে এক টুকরো আমাদের উপর ফেলে দাও’।
[ ������-���������'������: 187 ]
فَاَسْقِطْ عَلَیْنَا كِسَفًا مِّنَ السَّمَآءِ اِنْ كُنْتَ مِنَ الصّٰدِقِیْنَؕ﴿١٨٧ ﴾
সে বলল, ‘তোমরা যা কর, সে সম্পর্কে আমার রব অধিক জ্ঞাত’।
[ ������-���������'������: 188 ]
قَالَ رَبِّیْۤ اَعْلَمُ بِمَا تَعْمَلُوْنَ﴿١٨٨ ﴾
অতঃপর তারা তাকে অস্বীকার করল। ফলে তাদেরকে এক মেঘাচ্ছন্ন দিবসের আযাব পাকড়াও করল। অবশ্যই তা ছিল এক মহা দিবসের আযাব।
[ ������-���������'������: 189 ]
فَكَذَّبُوْهُ فَاَخَذَهُمْ عَذَابُ یَوْمِ الظُّلَّةِ ؕ اِنَّهٗ كَانَ عَذَابَ یَوْمٍ عَظِیْمٍ﴿١٨٩ ﴾
নিশ্চয় এতে অনেক নিদর্শন রয়েছে। আর তাদের অধিকাংশই মুমিন ছিল না।
[ ������-���������'������: 190 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٩٠ ﴾
আর নিশ্চয় তোমার রব তিনি তো মহাপরাক্রমশালী, পরম দয়ালু।
[ ������-���������'������: 191 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿١٩١ ﴾
আর নিশ্চয় এ কুরআন সৃষ্টিকুলের রবেরই নাযিলকৃত।
[ ������-���������'������: 192 ]
وَ اِنَّهٗ لَتَنْزِیْلُ رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٩٢ ﴾
বিশ্বস্ত আত্মা* এটা নিয়ে অবতরণ করেছে।
[ ������-���������'������: 193 ]
نَزَلَ بِهِ الرُّوْحُ الْاَمِیْنُۙ﴿١٩٣ ﴾
তোমার হৃদয়ে, যাতে তুমি সতর্ককারীদের অন্তর্ভুক্ত হও।
[ ������-���������'������: 194 ]
عَلٰی قَلْبِكَ لِتَكُوْنَ مِنَ الْمُنْذِرِیْنَ﴿١٩٤ ﴾
সুস্পষ্ট আরবী ভাষায়।
[ ������-���������'������: 195 ]
بِلِسَانٍ عَرَبِیٍّ مُّبِیْنٍؕ﴿١٩٥ ﴾
আর অবশ্যই তা রয়েছে পূর্ববর্তী কিতাবসমূহে।
[ ������-���������'������: 196 ]
وَ اِنَّهٗ لَفِیْ زُبُرِ الْاَوَّلِیْنَ﴿١٩٦ ﴾
এটা কি তাদের জন্য একটি নিদর্শন নয় যে, বনী ইসরাঈলের পন্ডিতগণ তা জানে?
[ ������-���������'������: 197 ]
اَوَ لَمْ یَكُنْ لَّهُمْ اٰیَةً اَنْ یَّعْلَمَهٗ عُلَمٰٓؤُا بَنِیْۤ اِسْرَآءِیْلَؕ﴿١٩٧ ﴾
আর আমি যদি এটাকে কোন অনারবের প্রতি নাযিল করতাম।
[ ������-���������'������: 198 ]
وَ لَوْ نَزَّلْنٰهُ عَلٰی بَعْضِ الْاَعْجَمِیْنَۙ﴿١٩٨ ﴾
অতঃপর সে তা তাদের নিকট পাঠ করত। তবুও তারা এতে মুমিন হত না।
[ ������-���������'������: 199 ]
فَقَرَاَهٗ عَلَیْهِمْ مَّا كَانُوْا بِهٖ مُؤْمِنِیْنَؕ﴿١٩٩ ﴾
এভাবেই আমি বিষয়টি অপরাধীদের অন্তরে সঞ্চার করেছি।
[ ������-���������'������: 200 ]
كَذٰلِكَ سَلَكْنٰهُ فِیْ قُلُوْبِ الْمُجْرِمِیْنَؕ﴿٢٠٠ ﴾
যতক্ষণ না তারা যন্ত্রণাদায়ক আযাব প্রত্যক্ষ করবে, ততক্ষণ পর্যন্ত তারা এতে ঈমান আনবে না।
[ ������-���������'������: 201 ]
لَا یُؤْمِنُوْنَ بِهٖ حَتّٰی یَرَوُا الْعَذَابَ الْاَلِیْمَۙ﴿٢٠١ ﴾
সুতরাং তা আকস্মিকভাবে তাদের নিকট এসে পড়বে, অথচ তারা উপলদ্ধি করতে পারবে না।
[ ������-���������'������: 202 ]
فَیَاْتِیَهُمْ بَغْتَةً وَّ هُمْ لَا یَشْعُرُوْنَۙ﴿٢٠٢ ﴾
তখন তারা বলবে, ‘আমাদেরকে কি অবকাশ দেয়া হবে?’
[ ������-���������'������: 203 ]
فَیَقُوْلُوْا هَلْ نَحْنُ مُنْظَرُوْنَؕ﴿٢٠٣ ﴾
তাহলে কি তারা আমার আযাব ত্বরান্বিত করতে চায়?
[ ������-���������'������: 204 ]
اَفَبِعَذَابِنَا یَسْتَعْجِلُوْنَ﴿٢٠٤ ﴾
তুমি কি লক্ষ্য করেছ, আমি যদি তাদেরকে দীর্ঘকাল ভোগ-বিলাসের সুযোগ দিতাম।
[ ������-���������'������: 205 ]
اَفَرَءَیْتَ اِنْ مَّتَّعْنٰهُمْ سِنِیْنَۙ﴿٢٠٥ ﴾
অতঃপর তাদেরকে যে বিষয়ে ওয়াদা করা হয়েছে, তা তাদের নিকট এসে পড়ত,
[ ������-���������'������: 206 ]
ثُمَّ جَآءَهُمْ مَّا كَانُوْا یُوْعَدُوْنَۙ﴿٢٠٦ ﴾
তখন যা তাদের ভোগ-বিলাসের জন্য দেয়া হয়েছিল, তা তাদের কোনই কাজে আসত না।
[ ������-���������'������: 207 ]
مَاۤ اَغْنٰی عَنْهُمْ مَّا كَانُوْا یُمَتَّعُوْنَؕ﴿٢٠٧ ﴾
আর আমি এমন কোন জনপদকে ধ্বংস করিনি, যাতে কোন সতর্ককারী আসেনি।
[ ������-���������'������: 208 ]
وَ مَاۤ اَهْلَكْنَا مِنْ قَرْیَةٍ اِلَّا لَهَا مُنْذِرُوْنَ ۗۛۖ﴿٢٠٨ ﴾
এটা উপদেশস্বরূপ; আর আমি যালিমদের অন্তর্ভুক্ত ছিলাম না।
[ ������-���������'������: 209 ]
ذِكْرٰی ۛ۫ وَ مَا كُنَّا ظٰلِمِیْنَ﴿٢٠٩ ﴾
আর শয়তানরা তা নিয়ে অবতরণ করেনি।
[ ������-���������'������: 210 ]
وَ مَا تَنَزَّلَتْ بِهِ الشَّیٰطِیْنُ﴿٢١٠ ﴾
আর এটা তাদের জন্য উচিৎ নয় এবং তারা এর ক্ষমতাও রাখে না।
[ ������-���������'������: 211 ]
وَ مَا یَنْۢبَغِیْ لَهُمْ وَ مَا یَسْتَطِیْعُوْنَؕ﴿٢١١ ﴾
নিশ্চয়ই তাদেরকে এর শ্রবণ থেকে আড়ালে রাখা হয়েছে।
[ ������-���������'������: 212 ]
اِنَّهُمْ عَنِ السَّمْعِ لَمَعْزُوْلُوْنَؕ﴿٢١٢ ﴾
অতএব, তুমি আল্লাহর সাথে অন্য কোন ইলাহকে ডেকো না, তাহলে তুমি আযাবপ্রাপ্তদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে।
[ ������-���������'������: 213 ]
فَلَا تَدْعُ مَعَ اللّٰهِ اِلٰهًا اٰخَرَ فَتَكُوْنَ مِنَ الْمُعَذَّبِیْنَۚ﴿٢١٣ ﴾
আর তুমি তোমার নিকটাত্মীয়দেরকে সতর্ক কর।
[ ������-���������'������: 214 ]
وَ اَنْذِرْ عَشِیْرَتَكَ الْاَقْرَبِیْنَۙ﴿٢١٤ ﴾
আর মুমিনদের মধ্যে যারা তোমার অনুসরণ করে, তাদের প্রতি তুমি তোমার বাহুকে অবনত কর।
[ ������-���������'������: 215 ]
وَ اخْفِضْ جَنَاحَكَ لِمَنِ اتَّبَعَكَ مِنَ الْمُؤْمِنِیْنَۚ﴿٢١٥ ﴾
তারপর যদি তারা তোমার অবাধ্য হয়, তাহলে বল, ‘তোমরা যা কর, নিশ্চয় আমি তা থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত’।
[ ������-���������'������: 216 ]
فَاِنْ عَصَوْكَ فَقُلْ اِنِّیْ بَرِیْٓءٌ مِّمَّا تَعْمَلُوْنَۚ﴿٢١٦ ﴾
‘আর তুমি মহাপরাক্রমশালী পরম দয়ালুর উপর তাওয়াক্কুল কর,
[ ������-���������'������: 217 ]
وَ تَوَكَّلْ عَلَی الْعَزِیْزِ الرَّحِیْمِۙ﴿٢١٧ ﴾
‘যিনি তোমাকে দেখেন যখন তুমি দন্ডায়মান হও’
[ ������-���������'������: 218 ]
الَّذِیْ یَرٰىكَ حِیْنَ تَقُوْمُۙ﴿٢١٨ ﴾
‘এবং সিজদাকারীদের মধ্যে তোমার উঠাবসা’।
[ ������-���������'������: 219 ]
وَ تَقَلُّبَكَ فِی السّٰجِدِیْنَ﴿٢١٩ ﴾
‘নিশ্চয় তিনি সর্বশ্রোতা, মহাজ্ঞানী’।
[ ������-���������'������: 220 ]
اِنَّهٗ هُوَ السَّمِیْعُ الْعَلِیْمُ﴿٢٢٠ ﴾
‘আমি কি তোমাদেরকে সংবাদ দেব, কার নিকট শয়তানরা অবতীর্ণ হয়’?
[ ������-���������'������: 221 ]
هَلْ اُنَبِّئُكُمْ عَلٰی مَنْ تَنَزَّلُ الشَّیٰطِیْنُؕ﴿٢٢١ ﴾
তারা অবতীর্ণ হয় প্রত্যেক চরম মিথ্যাবাদী ও পাপীর নিকট।
[ ������-���������'������: 222 ]
تَنَزَّلُ عَلٰی كُلِّ اَفَّاكٍ اَثِیْمٍۙ﴿٢٢٢ ﴾
তারা কান পেতে থাকে এবং তাদের অধিকাংশই মিথ্যাবাদী।
[ ������-���������'������: 223 ]
یُّلْقُوْنَ السَّمْعَ وَ اَكْثَرُهُمْ كٰذِبُوْنَؕ﴿٢٢٣ ﴾
আর বিভ্রান্তরাই কবিদের অনুসরণ করে।
[ ������-���������'������: 224 ]
وَ الشُّعَرَآءُ یَتَّبِعُهُمُ الْغَاوٗنَؕ﴿٢٢٤ ﴾
তুমি কি লক্ষ্য করো নি যে, তারা প্রত্যেক উপত্যকায় উদভ্রান্ত হয়ে ঘুরে বেড়ায়?
[ ������-���������'������: 225 ]
اَلَمْ تَرَ اَنَّهُمْ فِیْ كُلِّ وَادٍ یَّهِیْمُوْنَۙ﴿٢٢٥ ﴾
আর নিশ্চয় তারা এমন কথা বলে, যা তারা করে না।
[ ������-���������'������: 226 ]
وَ اَنَّهُمْ یَقُوْلُوْنَ مَا لَا یَفْعَلُوْنَۙ﴿٢٢٦ ﴾
তবে যারা ঈমান এনেছে এবং সৎকর্ম করেছে, আর আল্লাহকে অনেক স্মরণ করেছে। আর তারা নির্যাতিত হওয়ার পর প্রতিশোধ নেয়। আর যালিমরা শীঘ্রই জানতে পারবে কোন্ প্রত্যাবর্তন স্থলে তারা প্রত্যাবর্তন করবে।
[ ������-���������'������: 227 ]
اِلَّا الَّذِیْنَ اٰمَنُوْا وَ عَمِلُوا الصّٰلِحٰتِ وَ ذَكَرُوا اللّٰهَ كَثِیْرًا وَّ انْتَصَرُوْا مِنْۢ بَعْدِ مَا ظُلِمُوْا ؕ وَ سَیَعْلَمُ الَّذِیْنَ ظَلَمُوْۤا اَیَّ مُنْقَلَبٍ یَّنْقَلِبُوْنَ﴿٢٢٧ ﴾