۞ بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ ۞
অনুবাদকে টিক দিন        


সমগ্র কুরআনে সার্চ করার জন্য আরবি অথবা বাংলা শব্দ দিন...


তথ্য খুঁজুন: যেমনঃ মায়িদা x
সুরা লিস্ট দেখুন

সূরা নাম (Sura Name): �������� ���������� -- An-Naba' -- ������-������������
আয়াত সংখ্যা: 40
আয়াত আরবি
কোন্ বিষয় সম্পর্কে তারা পরস্পর জিজ্ঞাসাবাদ করছে ?
[ ������-������������: 1 ]
عَمَّ یَتَسَآءَلُوْنَۚ﴿١ ﴾
মহাসংবাদটি সম্পর্কে,
[ ������-������������: 2 ]
عَنِ النَّبَاِ الْعَظِیْمِۙ﴿٢ ﴾
যে বিষয়ে তারা মতভেদ করছে।
[ ������-������������: 3 ]
الَّذِیْ هُمْ فِیْهِ مُخْتَلِفُوْنَؕ﴿٣ ﴾
কখনো না, অচিরেই তারা জানতে পারবে।
[ ������-������������: 4 ]
كَلَّا سَیَعْلَمُوْنَۙ﴿٤ ﴾
তারপর কখনো না, তারা অচিরেই জানতে পারবে।
[ ������-������������: 5 ]
ثُمَّ كَلَّا سَیَعْلَمُوْنَ﴿٥ ﴾
আমি কি বানাইনি যমীনকে শয্যা?
[ ������-������������: 6 ]
اَلَمْ نَجْعَلِ الْاَرْضَ مِهٰدًاۙ﴿٦ ﴾
আর পর্বতসমূহকে পেরেক?
[ ������-������������: 7 ]
وَّ الْجِبَالَ اَوْتَادًا۪ۙ﴿٧ ﴾
আর আমি তোমাদেরকে সৃষ্টি করেছি জোড়ায় জোড়ায়।
[ ������-������������: 8 ]
وَّ خَلَقْنٰكُمْ اَزْوَاجًاۙ﴿٨ ﴾
আর আমি তোমাদের নিদ্রাকে করেছি বিশ্রাম।
[ ������-������������: 9 ]
وَّ جَعَلْنَا نَوْمَكُمْ سُبَاتًاۙ﴿٩ ﴾
আর আমি রাতকে করেছি আবরণ।
[ ������-������������: 10 ]
وَّ جَعَلْنَا الَّیْلَ لِبَاسًاۙ﴿١٠ ﴾
আর আমি দিনকে করেছি জীবিকার্জনের সময়।
[ ������-������������: 11 ]
وَّ جَعَلْنَا النَّهَارَ مَعَاشًا۪﴿١١ ﴾
আর আমি তোমাদের উপরে বানিয়েছি সাতটি সুদৃঢ় আকাশ।
[ ������-������������: 12 ]
وَّ بَنَیْنَا فَوْقَكُمْ سَبْعًا شِدَادًاۙ﴿١٢ ﴾
আর আমি সৃষ্টি করেছি উজ্জ্বল একটি প্রদীপ।
[ ������-������������: 13 ]
وَّ جَعَلْنَا سِرَاجًا وَّهَّاجًا۪ۙ﴿١٣ ﴾
আর আমি মেঘমালা থেকে প্রচুর পানি বর্ষণ করেছি।
[ ������-������������: 14 ]
وَّ اَنْزَلْنَا مِنَ الْمُعْصِرٰتِ مَآءً ثَجَّاجًاۙ﴿١٤ ﴾
যাতে তা দিয়ে আমি শস্য ও উদ্ভিদ উৎপন্ন করতে পারি।
[ ������-������������: 15 ]
لِّنُخْرِجَ بِهٖ حَبًّا وَّ نَبَاتًاۙ﴿١٥ ﴾
আর ঘন উদ্যানসমূহ।
[ ������-������������: 16 ]
وَّ جَنّٰتٍ اَلْفَافًاؕ﴿١٦ ﴾
নিশ্চয় ফয়সালার দিন নির্ধারিত আছে।
[ ������-������������: 17 ]
اِنَّ یَوْمَ الْفَصْلِ كَانَ مِیْقَاتًاۙ﴿١٧ ﴾
সেদিন শিঙ্গায় ফুঁক দেয়া হবে, তখন তোমরা দলে দলে আসবে।
[ ������-������������: 18 ]
یَّوْمَ یُنْفَخُ فِی الصُّوْرِ فَتَاْتُوْنَ اَفْوَاجًاۙ﴿١٨ ﴾
আর আসমান খুলে দেয়া হবে, ফলে তা হবে বহু দ্বারবিশিষ্ট।
[ ������-������������: 19 ]
وَّ فُتِحَتِ السَّمَآءُ فَكَانَتْ اَبْوَابًاۙ﴿١٩ ﴾
আর পর্বতসমূহকে চলমান করা হবে, ফলে সেগুলো মরীচিকা হয়ে যাবে।
[ ������-������������: 20 ]
وَّ سُیِّرَتِ الْجِبَالُ فَكَانَتْ سَرَابًاؕ﴿٢٠ ﴾
নিশ্চয় জাহান্নাম গোপন ফাঁদ।
[ ������-������������: 21 ]
اِنَّ جَهَنَّمَ كَانَتْ مِرْصَادًا۪ۙ﴿٢١ ﴾
সীমালঙ্ঘনকারীদের জন্য প্রত্যাবর্তন স্থল।
[ ������-������������: 22 ]
لِّلطَّاغِیْنَ مَاٰبًاۙ﴿٢٢ ﴾
সেখানে তারা যুগ যুগ ধরে অবস্থান করবে।
[ ������-������������: 23 ]
لّٰبِثِیْنَ فِیْهَاۤ اَحْقَابًاۚ﴿٢٣ ﴾
সেখানে তারা কোন শীতলতা আস্বাদন করবে না এবং না কোন পানীয়।
[ ������-������������: 24 ]
لَا یَذُوْقُوْنَ فِیْهَا بَرْدًا وَّ لَا شَرَابًاۙ﴿٢٤ ﴾
ফুটন্ত পানি ও পুঁজ ছাড়া।
[ ������-������������: 25 ]
اِلَّا حَمِیْمًا وَّ غَسَّاقًاۙ﴿٢٥ ﴾
উপযুক্ত প্রতিফলস্বরূপ।
[ ������-������������: 26 ]
جَزَآءً وِّفَاقًاؕ﴿٢٦ ﴾
নিশ্চয় তারা হিসাবের আশা করত না।
[ ������-������������: 27 ]
اِنَّهُمْ كَانُوْا لَا یَرْجُوْنَ حِسَابًاۙ﴿٢٧ ﴾
আর তারা আমার আয়াতসমূহকে সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করেছিল।
[ ������-������������: 28 ]
وَّ كَذَّبُوْا بِاٰیٰتِنَا كِذَّابًاؕ﴿٢٨ ﴾
আর সব কিছুই আমি লিখিতভাবে সংরক্ষণ করেছি।
[ ������-������������: 29 ]
وَ كُلَّ شَیْءٍ اَحْصَیْنٰهُ كِتٰبًاۙ﴿٢٩ ﴾
সুতরাং তোমরা স্বাদ গ্রহণ কর। আর আমি তো কেবল তোমাদের আযাবই বৃদ্ধি করব।
[ ������-������������: 30 ]
فَذُوْقُوْا فَلَنْ نَّزِیْدَكُمْ اِلَّا عَذَابًا﴿٣٠ ﴾
নিশ্চয় মুত্তাকীদের জন্য রয়েছে সফলতা।
[ ������-������������: 31 ]
اِنَّ لِلْمُتَّقِیْنَ مَفَازًاۙ﴿٣١ ﴾
উদ্যানসমূহ ও আঙ্গুরসমূহ।
[ ������-������������: 32 ]
حَدَآىِٕقَ وَ اَعْنَابًاۙ﴿٣٢ ﴾
আর সমবয়স্কা উদ্‌ভিন্ন যৌবনা তরুণী।
[ ������-������������: 33 ]
وَّ كَوَاعِبَ اَتْرَابًاۙ﴿٣٣ ﴾
আর পরিপূর্ণ পানপাত্র।
[ ������-������������: 34 ]
وَّ كَاْسًا دِهَاقًاؕ﴿٣٤ ﴾
তারা সেখানে কোন অসার ও মিথ্যা কথা শুনবে না।
[ ������-������������: 35 ]
لَا یَسْمَعُوْنَ فِیْهَا لَغْوًا وَّ لَا كِذّٰبًاۚ﴿٣٥ ﴾
তোমার রবের পক্ষ থেকে প্রতিফল, যথোচিত দানস্বরূপ।
[ ������-������������: 36 ]
جَزَآءً مِّنْ رَّبِّكَ عَطَآءً حِسَابًاۙ﴿٣٦ ﴾
যিনি আসমানসমূহ, যমীন ও এতদোভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছুর রব, পরম করুণাময়। তারা তাঁর সামনে কথা বলার সামর্থ্য রাখবে না।
[ ������-������������: 37 ]
رَّبِّ السَّمٰوٰتِ وَ الْاَرْضِ وَ مَا بَیْنَهُمَا الرَّحْمٰنِ لَا یَمْلِكُوْنَ مِنْهُ خِطَابًاۚ﴿٣٧ ﴾
সেদিন রূহ* ও ফেরেশতাগণ সারিবদ্ধভাবে দাঁড়াবে, যাকে পরম করুণাময় অনুমতি দেবেন সে ছাড়া অন্যরা কোন কথা বলবে না। আর সে সঠিক কথাই বলবে।
[ ������-������������: 38 ]
یَوْمَ یَقُوْمُ الرُّوْحُ وَ الْمَلٰٓىِٕكَةُ صَفًّا ۙۗؕ لَّا یَتَكَلَّمُوْنَ اِلَّا مَنْ اَذِنَ لَهُ الرَّحْمٰنُ وَ قَالَ صَوَابًا﴿٣٨ ﴾
ঐ দিনটি সত্য। অতএব যে চায়, সে তার রবের নিকট আশ্রয় গ্রহণ করুক।
[ ������-������������: 39 ]
ذٰلِكَ الْیَوْمُ الْحَقُّ ۚ فَمَنْ شَآءَ اتَّخَذَ اِلٰی رَبِّهٖ مَاٰبًا﴿٣٩ ﴾
নিশ্চয় আমি তোমাদেরকে একটি নিকটবর্তী আযাব সম্পর্কে সতর্ক করলাম। যেদিন মানুষ দেখতে পাবে, তার দু’হাত কী অগ্রে প্রেরণ করেছে এবং কাফির বলবে ‘হায়, আমি যদি মাটি হতাম’!
[ ������-������������: 40 ]
اِنَّاۤ اَنْذَرْنٰكُمْ عَذَابًا قَرِیْبًا ۖۚ۬ یَّوْمَ یَنْظُرُ الْمَرْءُ مَا قَدَّمَتْ یَدٰهُ وَ یَقُوْلُ الْكٰفِرُ یٰلَیْتَنِیْ كُنْتُ تُرٰبًا﴿٤٠ ﴾