۞ بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ ۞
অনুবাদকে টিক দিন        


সমগ্র কুরআনে সার্চ করার জন্য আরবি অথবা বাংলা শব্দ দিন...


তথ্য খুঁজুন: যেমনঃ মায়িদা x
সুরা লিস্ট দেখুন

সূরা নাম (Sura Name): �������� �������������� -- Ash-Shu'ara -- ������-���������'������
আয়াত সংখ্যা: 227
আয়াত নাম্বার আয়াত আরবি
1 ত্ব-সীন-মীম।
[ ������-���������'������: 1 ]
طٰسٓمّٓ﴿١ ﴾
2 এগুলো সুস্পষ্ট (বা সুস্পষ্টকারী) কিতাবের আয়াত।
[ ������-���������'������: 2 ]
تِلْكَ اٰیٰتُ الْكِتٰبِ الْمُبِیْنِ﴿٢ ﴾
3 তুমি হয়ত এ দুঃখে তোমার প্রাণনাশ করবে যে, তারা মু’মিন হচ্ছে না।
[ ������-���������'������: 3 ]
لَعَلَّكَ بَاخِعٌ نَّفْسَكَ اَلَّا یَكُوْنُوْا مُؤْمِنِیْنَ﴿٣ ﴾
4 আমি ইচ্ছে করলে তাদের কাছে আসমান থেকে এমন নিদর্শন পাঠাতাম যে তার সামনে তাদের মাথা নত হয়ে যেত (অর্থাৎ তারা ঈমান আনতে বাধ্য হত)।
[ ������-���������'������: 4 ]
اِنْ نَّشَاْ نُنَزِّلْ عَلَیْهِمْ مِّنَ السَّمَآءِ اٰیَةً فَظَلَّتْ اَعْنَاقُهُمْ لَهَا خٰضِعِیْنَ﴿٤ ﴾
5 তাদের কাছে যখনই দয়াময় আল্লাহর পক্ষ হতে নতুন কোন নসীহত আসে তখনই তারা তাত্থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়।
[ ������-���������'������: 5 ]
وَ مَا یَاْتِیْهِمْ مِّنْ ذِكْرٍ مِّنَ الرَّحْمٰنِ مُحْدَثٍ اِلَّا كَانُوْا عَنْهُ مُعْرِضِیْنَ﴿٥ ﴾
6 তারা (আল্লাহর বাণীকে) অস্বীকারই করেছে, শীঘ্রই তাদের কাছে তার সত্য উদঘাটিত হবে যা নিয়ে তারা ঠাট্টা-বিদ্রূপ করত।
[ ������-���������'������: 6 ]
فَقَدْ كَذَّبُوْا فَسَیَاْتِیْهِمْ اَنْۢبٰٓؤُا مَا كَانُوْا بِهٖ یَسْتَهْزِءُوْنَ﴿٦ ﴾
7 তারা কি যমীনের দিকে চেয়ে দেখে না, আমি তাতে সব ধরনের উৎকৃষ্ট উদ্ভিদ পয়দা করেছি।
[ ������-���������'������: 7 ]
اَوَ لَمْ یَرَوْا اِلَی الْاَرْضِ كَمْ اَنْۢبَتْنَا فِیْهَا مِنْ كُلِّ زَوْجٍ كَرِیْمٍ﴿٧ ﴾
8 অবশ্যই এতে নিদর্শন আছে (আল্লাহ সম্পর্কে চিন্তা ক’রে ঈমান আনার জন্য), কিন্তু তাদের অধিকাংশই ঈমান আনে না।
[ ������-���������'������: 8 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿٨ ﴾
9 নিশ্চয় তোমার প্রতিপালক মহা পরাক্রমশালী, অতি দয়ালু।
[ ������-���������'������: 9 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿٩ ﴾
10 স্মরণ কর, যখন তোমার প্রতিপালক মূসাকে ডাক দিয়ে বললেন, ‘তুমি যালিম সম্প্রদায়ের কাছে যাও,
[ ������-���������'������: 10 ]
وَ اِذْ نَادٰی رَبُّكَ مُوْسٰۤی اَنِ ائْتِ الْقَوْمَ الظّٰلِمِیْنَۙ﴿١٠ ﴾
11 ফেরাউনের সম্প্রদায়ের কাছে। তারা কি ভয় করে না?
[ ������-���������'������: 11 ]
قَوْمَ فِرْعَوْنَ ؕ اَلَا یَتَّقُوْنَ﴿١١ ﴾
12 সে বলেছিল, ‘হে আমার প্রতিপালক! আমার ভয় হচ্ছে তারা আমাকে মিথ্যে মনে ক’রে প্রত্যাখ্যান করবে।
[ ������-���������'������: 12 ]
قَالَ رَبِّ اِنِّیْۤ اَخَافُ اَنْ یُّكَذِّبُوْنِؕ﴿١٢ ﴾
13 আর আমার অন্তর সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে, আমার জিহ্বা সাবলীলভাবে কথা বলতে পারে না। কাজেই আপনি হারূনের প্রতি রিসালাত দিন।
[ ������-���������'������: 13 ]
وَ یَضِیْقُ صَدْرِیْ وَ لَا یَنْطَلِقُ لِسَانِیْ فَاَرْسِلْ اِلٰی هٰرُوْنَ﴿١٣ ﴾
14 তদুপরি আমার বিরুদ্ধে অপরাধের অভিযোগও তাদের আছে, কাজেই আমার ভয় হচ্ছে তারা আমাকে হত্যা করবে।’
[ ������-���������'������: 14 ]
وَ لَهُمْ عَلَیَّ ذَنْۢبٌ فَاَخَافُ اَنْ یَّقْتُلُوْنِۚ﴿١٤ ﴾
15 আল্লাহ বললেন, ‘কক্ষনো না, তোমরা দু’জনে আমার (দেয়া) নিদর্শন নিয়ে যাও, আমি তোমাদের সঙ্গে থেকে সব কিছু শুনতে থাকব।
[ ������-���������'������: 15 ]
قَالَ كَلَّا ۚ فَاذْهَبَا بِاٰیٰتِنَاۤ اِنَّا مَعَكُمْ مُّسْتَمِعُوْنَ﴿١٥ ﴾
16 কাজেই তোমরা দু’জনে ফেরাউনের কাছে যাও আর গিয়ে বল যে, আমরা বিশ্বজগতের প্রতিপালকের প্রেরিত রসূল।
[ ������-���������'������: 16 ]
فَاْتِیَا فِرْعَوْنَ فَقُوْلَاۤ اِنَّا رَسُوْلُ رَبِّ الْعٰلَمِیْنَۙ﴿١٦ ﴾
17 বানী ইসরাঈলকে আমাদের সঙ্গে পাঠিয়ে দাও।’
[ ������-���������'������: 17 ]
اَنْ اَرْسِلْ مَعَنَا بَنِیْۤ اِسْرَآءِیْلَؕ﴿١٧ ﴾
18 ফেরাউন বলল, ‘আমরা কি তোমাকে শিশুকালে আমাদের মধ্যে লালন পালন করিনি? আর তুমি কি তোমার জীবনের কতকগুলো বছর আমাদের মাঝে কাটাওনি?
[ ������-���������'������: 18 ]
قَالَ اَلَمْ نُرَبِّكَ فِیْنَا وَلِیْدًا وَّ لَبِثْتَ فِیْنَا مِنْ عُمُرِكَ سِنِیْنَۙ﴿١٨ ﴾
19 তুমি তোমার কর্ম যা করার করেছ (আমাদের একজন লোককে হত্যা ক’রে), তুমি বড় অকৃতজ্ঞ।’
[ ������-���������'������: 19 ]
وَ فَعَلْتَ فَعْلَتَكَ الَّتِیْ فَعَلْتَ وَ اَنْتَ مِنَ الْكٰفِرِیْنَ﴿١٩ ﴾
20 মূসা বলল : ‘আমি তো তা করেছিলাম সে সময় যখন আমি ছিলাম (সঠিক পথ সম্পর্কে) অজ্ঞ।
[ ������-���������'������: 20 ]
قَالَ فَعَلْتُهَاۤ اِذًا وَّ اَنَا مِنَ الضَّآلِّیْنَؕ﴿٢٠ ﴾
21 অতঃপর তোমাদের ভয়ে ভীত হয়ে আমি তোমাদের থেকে পালিয়ে গেলাম। অতঃপর আমার রবব আমাকে প্রজ্ঞা দান করলেন, আর আমাকে করলেন রসূলদের একজন।
[ ������-���������'������: 21 ]
فَفَرَرْتُ مِنْكُمْ لَمَّا خِفْتُكُمْ فَوَهَبَ لِیْ رَبِّیْ حُكْمًا وَّ جَعَلَنِیْ مِنَ الْمُرْسَلِیْنَ﴿٢١ ﴾
22 তুমি আমার প্রতি তোমার যে অনুগ্রহের খোঁটা দিচ্ছ তাতো এই যে, তুমি বানী ইসরাঈলকে দাসে পরিণত করেছ।’
[ ������-���������'������: 22 ]
وَ تِلْكَ نِعْمَةٌ تَمُنُّهَا عَلَیَّ اَنْ عَبَّدْتَّ بَنِیْۤ اِسْرَآءِیْلَؕ﴿٢٢ ﴾
23 ফেরাউন বলল : ‘বিশ্বজগতের প্রতিপালক আবার কী?’
[ ������-���������'������: 23 ]
قَالَ فِرْعَوْنُ وَ مَا رَبُّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿٢٣ ﴾
24 মূসা বলল : ‘(যিনি) আসমান ও যমীন ও এ দু’য়ের মাঝে যা কিছু আছে সব কিছুর প্রতিপালক- যদি তোমরা নিঃসন্দেহে বিশ্বাসী হও।
[ ������-���������'������: 24 ]
قَالَ رَبُّ السَّمٰوٰتِ وَ الْاَرْضِ وَ مَا بَیْنَهُمَا ؕ اِنْ كُنْتُمْ مُّوْقِنِیْنَ﴿٢٤ ﴾
25 ফেরাউন তার চারপাশের লোকেদেরকে বলল- ‘তোমরা শুনছ তো?’
[ ������-���������'������: 25 ]
قَالَ لِمَنْ حَوْلَهٗۤ اَلَا تَسْتَمِعُوْنَ﴿٢٥ ﴾
26 মূসা বলল : ‘(তিনি) তোমাদের প্রতিপালক ও শুরু থেকে পূর্ববর্তী তোমাদের বাপ-দাদাদেরও প্রতিপালক।’
[ ������-���������'������: 26 ]
قَالَ رَبُّكُمْ وَ رَبُّ اٰبَآىِٕكُمُ الْاَوَّلِیْنَ﴿٢٦ ﴾
27 (ফিরআউন) বলল: ‘তোমাদের রসূল যে তোমাদের নিকট প্রেরিত হয়েছে সে নিশ্চিতই পাগল।’
[ ������-���������'������: 27 ]
قَالَ اِنَّ رَسُوْلَكُمُ الَّذِیْۤ اُرْسِلَ اِلَیْكُمْ لَمَجْنُوْنٌ﴿٢٧ ﴾
28 (মূসা) বললঃ ‘(তিনিই) পূর্ব ও পশ্চিমের প্রতিপালক, আর এ উভয় দিকের মাঝে যা আছে তারও- যদি তোমাদের বুদ্ধিসুদ্ধি থাকে।’
[ ������-���������'������: 28 ]
قَالَ رَبُّ الْمَشْرِقِ وَ الْمَغْرِبِ وَ مَا بَیْنَهُمَا ؕ اِنْ كُنْتُمْ تَعْقِلُوْنَ﴿٢٨ ﴾
29 (ফেরাউন) বলল : ‘যদি তুমি আমাকে বাদ দিয়ে (অন্য কিছুকে) ইলাহ হিসেবে গ্রহণ কর, তাহলে আমি তোমাকে অবশ্য অবশ্যই কারারুদ্ধ করব।’
[ ������-���������'������: 29 ]
قَالَ لَىِٕنِ اتَّخَذْتَ اِلٰهًا غَیْرِیْ لَاَجْعَلَنَّكَ مِنَ الْمَسْجُوْنِیْنَ﴿٢٩ ﴾
30 (মূসা) বলল : ‘আমি যদি তোমার কাছে কোন স্পষ্ট জিনিস নিয়ে আসি তবুও?
[ ������-���������'������: 30 ]
قَالَ اَوَ لَوْ جِئْتُكَ بِشَیْءٍ مُّبِیْنٍۚ﴿٣٠ ﴾
31 (ফেরাউন) বলল : ‘তাহলে তা আনো, যদি তুমি সত্যবাদী হও।’
[ ������-���������'������: 31 ]
قَالَ فَاْتِ بِهٖۤ اِنْ كُنْتَ مِنَ الصّٰدِقِیْنَ﴿٣١ ﴾
32 তখন মূসা তার লাঠি ছুঁড়ে দিল আর সহসাই তা স্পষ্ট এক অজগর হয়ে গেল।
[ ������-���������'������: 32 ]
فَاَلْقٰی عَصَاهُ فَاِذَا هِیَ ثُعْبَانٌ مُّبِیْنٌۚۖ﴿٣٢ ﴾
33 আর মূসা (বগলের নীচ দিয়ে) নিজের হাত টেনে বের করল, আর তা দর্শকদের সামনে ঝকমক করতে লাগল।
[ ������-���������'������: 33 ]
وَّ نَزَعَ یَدَهٗ فَاِذَا هِیَ بَیْضَآءُ لِلنّٰظِرِیْنَ﴿٣٣ ﴾
34 ফেরাউন তার চারপাশের প্রধানদের বলল : ‘সে অবশ্যই এক দক্ষ যাদুকর।
[ ������-���������'������: 34 ]
قَالَ لِلْمَلَاِ حَوْلَهٗۤ اِنَّ هٰذَا لَسٰحِرٌ عَلِیْمٌۙ﴿٣٤ ﴾
35 যাদুর বলে সে তোমাদেরকে তোমাদের দেশ থেকে বের করে দিতে চায়। এখন বল তোমাদের নির্দেশ কী?’
[ ������-���������'������: 35 ]
یُّرِیْدُ اَنْ یُّخْرِجَكُمْ مِّنْ اَرْضِكُمْ بِسِحْرِهٖ ۖۗ فَمَا ذَا تَاْمُرُوْنَ﴿٣٥ ﴾
36 তারা বলল : ‘তাকে ও তার ভাইকে (কিছু সময়) অপেক্ষায় ফেলে রাখুন আর জড়ো করার জন্য ঘোষকদেরকে নগরে নগরে পাঠিয়ে দিন।
[ ������-���������'������: 36 ]
قَالُوْۤا اَرْجِهْ وَ اَخَاهُ وَ ابْعَثْ فِی الْمَدَآىِٕنِ حٰشِرِیْنَۙ﴿٣٦ ﴾
37 তারা আপনার কাছে প্রত্যেকটি অভিজ্ঞ যাদুকরকে নিয়ে আসবে।’
[ ������-���������'������: 37 ]
یَاْتُوْكَ بِكُلِّ سَحَّارٍ عَلِیْمٍ﴿٣٧ ﴾
38 কাজেই যাদুকরদেরকে একত্রিত করা হল একটি নির্দিষ্ট দিন ক্ষণের জন্য যা ছিল সুবিদিত।
[ ������-���������'������: 38 ]
فَجُمِعَ السَّحَرَةُ لِمِیْقَاتِ یَوْمٍ مَّعْلُوْمٍۙ﴿٣٨ ﴾
39 আর জনগণকে বলা হল- ‘তোমরা কি সম্মিলিত হবে?
[ ������-���������'������: 39 ]
وَّ قِیْلَ لِلنَّاسِ هَلْ اَنْتُمْ مُّجْتَمِعُوْنَۙ﴿٣٩ ﴾
40 যাতে আমরা যাদুকরদের (এবং তাদের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ফেরাউনের) দীন অনুসরণ করতে পারি যদি তারা বিজয়ী হয়।
[ ������-���������'������: 40 ]
لَعَلَّنَا نَتَّبِعُ السَّحَرَةَ اِنْ كَانُوْا هُمُ الْغٰلِبِیْنَ﴿٤٠ ﴾
41 যাদুকররা যখন আসলো, তারা ফেরাউনকে বলল : ‘আমরা জয়ী হলে আমাদেরকে পুরস্কার দেয়া হবে তো?’
[ ������-���������'������: 41 ]
فَلَمَّا جَآءَ السَّحَرَةُ قَالُوْا لِفِرْعَوْنَ اَىِٕنَّ لَنَا لَاَجْرًا اِنْ كُنَّا نَحْنُ الْغٰلِبِیْنَ﴿٤١ ﴾
42 ফেরাউন বলল- ‘হাঁ, তখন তোমরা অবশ্যই আমার নৈকট্যলাভকারীদের অন্তর্ভুক্ত হবে।’
[ ������-���������'������: 42 ]
قَالَ نَعَمْ وَ اِنَّكُمْ اِذًا لَّمِنَ الْمُقَرَّبِیْنَ﴿٤٢ ﴾
43 মূসা তাদেরকে বলল- ‘নিক্ষেপ কর যা তোমরা নিক্ষেপ করবে।’
[ ������-���������'������: 43 ]
قَالَ لَهُمْ مُّوْسٰۤی اَلْقُوْا مَاۤ اَنْتُمْ مُّلْقُوْنَ﴿٤٣ ﴾
44 তখন তারা তাদের রশিগুলো ও লাঠিগুলো নিক্ষেপ করল আর তারা বলল- ‘ফেরাউনের ইযযতের শপথ! আমরা অবশ্যই জয়ী হব।’
[ ������-���������'������: 44 ]
فَاَلْقَوْا حِبَالَهُمْ وَ عِصِیَّهُمْ وَ قَالُوْا بِعِزَّةِ فِرْعَوْنَ اِنَّا لَنَحْنُ الْغٰلِبُوْنَ﴿٤٤ ﴾
45 অতঃপর মূসা তার লাঠি নিক্ষেপ করল। হঠাৎ তা তাদের অলীক কীর্তিগুলোকে গিলতে লাগল।
[ ������-���������'������: 45 ]
فَاَلْقٰی مُوْسٰی عَصَاهُ فَاِذَا هِیَ تَلْقَفُ مَا یَاْفِكُوْنَۚۖ﴿٤٥ ﴾
46 তখন যাদুকররা সিজদায় লুটিয়ে পড়ল।
[ ������-���������'������: 46 ]
فَاُلْقِیَ السَّحَرَةُ سٰجِدِیْنَۙ﴿٤٦ ﴾
47 তারা বলল- ‘আমরা বিশ্বাস স্থাপন করলাম রাব্বুল ‘আলামীনের প্রতি,
[ ������-���������'������: 47 ]
قَالُوْۤا اٰمَنَّا بِرَبِّ الْعٰلَمِیْنَۙ﴿٤٧ ﴾
48 যিনি মূসা ও হারুনের প্রতিপালক।’
[ ������-���������'������: 48 ]
رَبِّ مُوْسٰی وَ هٰرُوْنَ﴿٤٨ ﴾
49 ফেরাউন বলল- ‘আমি তোমাদেরকে অনুমতি দেয়ার আগেই তোমরা তাতে বিশ্বাস আনলে? নিশ্চয়ই সে তোমাদের ওস্তাদ যে তোমাদেরকে যাদু শিখিয়েছে। শীঘ্রই তোমরা (এর পরিণাম) জানতে পারবে। আমি অবশ্য অবশ্যই তোমাদের হাত-পাগুলোকে বিপরীত দিক থেকে কেটে ফেলব আর তোমাদের সব্বাইকে অবশ্য অবশ্যই ‘শূলে চড়াব।
[ ������-���������'������: 49 ]
قَالَ اٰمَنْتُمْ لَهٗ قَبْلَ اَنْ اٰذَنَ لَكُمْ ۚ اِنَّهٗ لَكَبِیْرُكُمُ الَّذِیْ عَلَّمَكُمُ السِّحْرَ ۚ فَلَسَوْفَ تَعْلَمُوْنَ ؕ۬ لَاُقَطِّعَنَّ اَیْدِیَكُمْ وَ اَرْجُلَكُمْ مِّنْ خِلَافٍ وَّ لَاُصَلِّبَنَّكُمْ اَجْمَعِیْنَۚ﴿٤٩ ﴾
50 তারা বলল- কোনই ক্ষতি নেই, আমরা আমাদের প্রতিপালকের পানে প্রত্যাবর্তন করব।
[ ������-���������'������: 50 ]
قَالُوْا لَا ضَیْرَ ؗ اِنَّاۤ اِلٰی رَبِّنَا مُنْقَلِبُوْنَۚ﴿٥٠ ﴾
51 আমাদের একমাত্র আশা এই যে, আমাদের প্রতিপালক আমাদের ত্রুটি-বিচ্যুতি ক্ষমা করবেন, কারণ আমরা বিশ্বাস স্থাপনকারীদের মধ্যে প্রথম।’
[ ������-���������'������: 51 ]
اِنَّا نَطْمَعُ اَنْ یَّغْفِرَ لَنَا رَبُّنَا خَطٰیٰنَاۤ اَنْ كُنَّاۤ اَوَّلَ الْمُؤْمِنِیْنَؕ۠﴿٥١ ﴾
52 আমি মূসাকে ওহীযোগে নির্দেশ দিলাম আমার বান্দাদেরকে নিয়ে রাত্রিকালে বের হয়ে যাও, নিশ্চয়ই তোমাদের পশ্চাদ্ধাবন করা হবে।
[ ������-���������'������: 52 ]
وَ اَوْحَیْنَاۤ اِلٰی مُوْسٰۤی اَنْ اَسْرِ بِعِبَادِیْۤ اِنَّكُمْ مُّتَّبَعُوْنَ﴿٥٢ ﴾
53 অতঃপর ফেরাউন শহরে নগরে সংগ্রাহক পাঠিয়ে দিল।
[ ������-���������'������: 53 ]
فَاَرْسَلَ فِرْعَوْنُ فِی الْمَدَآىِٕنِ حٰشِرِیْنَۚ﴿٥٣ ﴾
54 (এই ব’লে যে) এরা (বানী ইসরাঈলরা) ক্ষুদ্র একটি দল।
[ ������-���������'������: 54 ]
اِنَّ هٰۤؤُلَآءِ لَشِرْذِمَةٌ قَلِیْلُوْنَۙ﴿٥٤ ﴾
55 তারা আমাদেরকে অবশ্যই ক্রোধান্বিত করেছে।
[ ������-���������'������: 55 ]
وَ اِنَّهُمْ لَنَا لَغَآىِٕظُوْنَۙ﴿٥٥ ﴾
56 আর আমরা অবশ্যই সদা সতর্ক একটি দল।
[ ������-���������'������: 56 ]
وَ اِنَّا لَجَمِیْعٌ حٰذِرُوْنَؕ﴿٥٦ ﴾
57 এভাবে আমি ফেরাউন গোষ্ঠীকে (তাদের নিজেদেরই) উদ্যানরাজি আর ঝর্ণাসমূহ থেকে বহিস্কার করলাম।
[ ������-���������'������: 57 ]
فَاَخْرَجْنٰهُمْ مِّنْ جَنّٰتٍ وَّ عُیُوْنٍۙ﴿٥٧ ﴾
58 আর ধনভন্ডারসমূহ ও সম্মানজনক অবস্থান থেকে।
[ ������-���������'������: 58 ]
وَّ كُنُوْزٍ وَّ مَقَامٍ كَرِیْمٍۙ﴿٥٨ ﴾
59 এভাবেই ঘটেছিল, আমি বানী ইসরাঈলকে এসব কিছুর উত্তরাধিকারী করে দিয়েছিলাম।
[ ������-���������'������: 59 ]
كَذٰلِكَ ؕ وَ اَوْرَثْنٰهَا بَنِیْۤ اِسْرَآءِیْلَؕ﴿٥٩ ﴾
60 কাজেই তারা (অর্থাৎ ফেরাউন গোষ্ঠী) সূর্যোদয়কালে তাদের পশ্চাদ্ধাবন করল।
[ ������-���������'������: 60 ]
فَاَتْبَعُوْهُمْ مُّشْرِقِیْنَ﴿٦٠ ﴾
61 যখন দু‘দল পরস্পরকে দেখল তখন মূসার সঙ্গীরা বলল- ‘আমরা তো ধরা পড়েই গেলাম।’
[ ������-���������'������: 61 ]
فَلَمَّا تَرَآءَ الْجَمْعٰنِ قَالَ اَصْحٰبُ مُوْسٰۤی اِنَّا لَمُدْرَكُوْنَۚ﴿٦١ ﴾
62 মূসা বলল- ‘কক্ষনো না, আমার রব আমার সঙ্গে আছেন, শীঘ্রই তিনি আমাকে পথ নির্দেশ করবেন।
[ ������-���������'������: 62 ]
قَالَ كَلَّا ۚ اِنَّ مَعِیَ رَبِّیْ سَیَهْدِیْنِ﴿٦٢ ﴾
63 তখন আমি মূসার প্রতি ওয়াহী করলাম- ‘তোমার লাঠি দিয়ে সমুদ্রে আঘাত কর।’ ফলে তা বিভক্ত হয়ে প্রত্যেক ভাগ সুবিশাল পর্বতের ন্যায় হয়ে গেল।
[ ������-���������'������: 63 ]
فَاَوْحَیْنَاۤ اِلٰی مُوْسٰۤی اَنِ اضْرِبْ بِّعَصَاكَ الْبَحْرَ ؕ فَانْفَلَقَ فَكَانَ كُلُّ فِرْقٍ كَالطَّوْدِ الْعَظِیْمِۚ﴿٦٣ ﴾
64 আমি সেখানে অপর দলটিকে পৌছে দিলাম।
[ ������-���������'������: 64 ]
وَ اَزْلَفْنَا ثَمَّ الْاٰخَرِیْنَۚ﴿٦٤ ﴾
65 আর মূসা ও তার সঙ্গী সবাইকে উদ্ধার করলাম।
[ ������-���������'������: 65 ]
وَ اَنْجَیْنَا مُوْسٰی وَ مَنْ مَّعَهٗۤ اَجْمَعِیْنَۚ﴿٦٥ ﴾
66 অতঃপর অপর দলটিকে ডুবিয়ে মারলাম।
[ ������-���������'������: 66 ]
ثُمَّ اَغْرَقْنَا الْاٰخَرِیْنَؕ﴿٦٦ ﴾
67 এতে অবশ্যই নিদর্শন আছে, কিন্তু তাদের অধিকাংশই বিশ্বাস করে না।
[ ������-���������'������: 67 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿٦٧ ﴾
68 তোমার পালনকর্তা অবশ্যই পরাক্রমশালী, বড়ই দয়ালু।
[ ������-���������'������: 68 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿٦٨ ﴾
69 ওদেরকে ইবরাহীমের বৃত্তান্ত শুনিয়ে দাও।
[ ������-���������'������: 69 ]
وَ اتْلُ عَلَیْهِمْ نَبَاَ اِبْرٰهِیْمَۘ﴿٦٩ ﴾
70 যখন সে তার পিতা ও তার সম্প্রদায়কে বলেছিল- ‘তোমরা কিসের ইবাদত কর?’
[ ������-���������'������: 70 ]
اِذْ قَالَ لِاَبِیْهِ وَ قَوْمِهٖ مَا تَعْبُدُوْنَ﴿٧٠ ﴾
71 তারা বলেছিল- ‘আমরা মূর্তির পূজা করি, আর আমরা সদা সর্বদা তাদেরকে আঁকড়ে থাকি।’
[ ������-���������'������: 71 ]
قَالُوْا نَعْبُدُ اَصْنَامًا فَنَظَلُّ لَهَا عٰكِفِیْنَ﴿٧١ ﴾
72 ইবরাহীম বলল- ‘তোমরা যখন (তাদেরকে) ডাক তখন কি তারা তোমাদের কথা শোনে?
[ ������-���������'������: 72 ]
قَالَ هَلْ یَسْمَعُوْنَكُمْ اِذْ تَدْعُوْنَۙ﴿٧٢ ﴾
73 কিংবা তোমাদের উপকার করে অথবা অপকার?’
[ ������-���������'������: 73 ]
اَوْ یَنْفَعُوْنَكُمْ اَوْ یَضُرُّوْنَ﴿٧٣ ﴾
74 তারা বলল- ‘না তবে আমরা আমাদের পিতৃদেরকে এরকম করতে দেখেছি।’
[ ������-���������'������: 74 ]
قَالُوْا بَلْ وَجَدْنَاۤ اٰبَآءَنَا كَذٰلِكَ یَفْعَلُوْنَ﴿٧٤ ﴾
75 সে বলল-তোমরা কি ভেবে দেখেছ তোমরা কিসের পূজা করে যাচ্ছ?
[ ������-���������'������: 75 ]
قَالَ اَفَرَءَیْتُمْ مَّا كُنْتُمْ تَعْبُدُوْنَۙ﴿٧٥ ﴾
76 তোমরা আর তোমাদের আগের পিতৃপুরুষরা?
[ ������-���������'������: 76 ]
اَنْتُمْ وَ اٰبَآؤُكُمُ الْاَقْدَمُوْنَؗۖ﴿٧٦ ﴾
77 তারা সবাই আমার শত্রু, বিশ্বজগতের পালনকর্তা ছাড়া।
[ ������-���������'������: 77 ]
فَاِنَّهُمْ عَدُوٌّ لِّیْۤ اِلَّا رَبَّ الْعٰلَمِیْنَۙ﴿٧٧ ﴾
78 তিনি আমাকে সৃষ্টি করেছেন অতঃপর তিনিই আমাকে পথ দেখান।
[ ������-���������'������: 78 ]
الَّذِیْ خَلَقَنِیْ فَهُوَ یَهْدِیْنِۙ﴿٧٨ ﴾
79 আর তিনিই আমাকে খাওয়ান ও পান করান।
[ ������-���������'������: 79 ]
وَ الَّذِیْ هُوَ یُطْعِمُنِیْ وَ یَسْقِیْنِۙ﴿٧٩ ﴾
80 আর আমি যখন পীড়িত হই তখন তিনিই আমাকে আরোগ্য করেন।
[ ������-���������'������: 80 ]
وَ اِذَا مَرِضْتُ فَهُوَ یَشْفِیْنِ۪ۙ﴿٨٠ ﴾
81 যিনি আমার মৃত্যু ঘটাবেন, পুনরায় আমাকে জীবিত করবেন।
[ ������-���������'������: 81 ]
وَ الَّذِیْ یُمِیْتُنِیْ ثُمَّ یُحْیِیْنِۙ﴿٨١ ﴾
82 আর যিনি, আমি আশা করি- কিয়ামাতের দিন আমার দোষ-ত্রুটি ক্ষমা করে দেবেন।
[ ������-���������'������: 82 ]
وَ الَّذِیْۤ اَطْمَعُ اَنْ یَّغْفِرَ لِیْ خَطِیْٓـَٔتِیْ یَوْمَ الدِّیْنِؕ﴿٨٢ ﴾
83 হে আমার পালনকর্তা! আমাকে প্রজ্ঞা দান কর এবং আমাকে সৎকর্মশীলদের অর্ন্তভুক্ত কর।
[ ������-���������'������: 83 ]
رَبِّ هَبْ لِیْ حُكْمًا وَّ اَلْحِقْنِیْ بِالصّٰلِحِیْنَۙ﴿٨٣ ﴾
84 এবং আমাকে পরবর্তীদের মধ্যে সত্যভাষী কর।
[ ������-���������'������: 84 ]
وَ اجْعَلْ لِّیْ لِسَانَ صِدْقٍ فِی الْاٰخِرِیْنَۙ﴿٨٤ ﴾
85 এবং আমাকে নি‘য়ামাতপূর্ণ জান্নাতের উত্তরাধিকারীদের অন্তর্ভুক্ত কর।
[ ������-���������'������: 85 ]
وَ اجْعَلْنِیْ مِنْ وَّرَثَةِ جَنَّةِ النَّعِیْمِۙ﴿٨٥ ﴾
86 আর তুমি আমার পিতাকে ক্ষমা কর, তিনি তো গুমরাহদের অর্ন্তভুক্ত।
[ ������-���������'������: 86 ]
وَ اغْفِرْ لِاَبِیْۤ اِنَّهٗ كَانَ مِنَ الضَّآلِّیْنَۙ﴿٨٦ ﴾
87 এবং পুনরুত্থান দিবসে আমাকে অপমানিত করো না।
[ ������-���������'������: 87 ]
وَ لَا تُخْزِنِیْ یَوْمَ یُبْعَثُوْنَۙ﴿٨٧ ﴾
88 যেদিন ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্তুতি কোন কাজে আসবে না।
[ ������-���������'������: 88 ]
یَوْمَ لَا یَنْفَعُ مَالٌ وَّ لَا بَنُوْنَۙ﴿٨٨ ﴾
89 কেবল (সাফল্য লাভ করবে) সে ব্যক্তি যে বিশুদ্ধ অন্তর নিয়ে আল্লাহর নিকট আসবে।
[ ������-���������'������: 89 ]
اِلَّا مَنْ اَتَی اللّٰهَ بِقَلْبٍ سَلِیْمٍؕ﴿٨٩ ﴾
90 আর জান্নাতকে মুত্তাকীদের নিকটবর্তী করা হবে।
[ ������-���������'������: 90 ]
وَ اُزْلِفَتِ الْجَنَّةُ لِلْمُتَّقِیْنَۙ﴿٩٠ ﴾
91 এবং পথভ্রষ্টদের সম্মুখে জাহান্নামকে উন্মোচিত করা হবে।
[ ������-���������'������: 91 ]
وَ بُرِّزَتِ الْجَحِیْمُ لِلْغٰوِیْنَۙ﴿٩١ ﴾
92 আর তাদেরকে বলা হবে, তোমরা যার ‘ইবাদাত করতে তারা কোথায়
[ ������-���������'������: 92 ]
وَ قِیْلَ لَهُمْ اَیْنَمَا كُنْتُمْ تَعْبُدُوْنَۙ﴿٩٢ ﴾
93 আল্লাহকে বাদ দিয়ে? তারা কি তোমাদের সাহায্য করতে পারে কিংবা তাদের নিজেদেরকে সাহায্য করতে পারে?
[ ������-���������'������: 93 ]
مِنْ دُوْنِ اللّٰهِ ؕ هَلْ یَنْصُرُوْنَكُمْ اَوْ یَنْتَصِرُوْنَؕ﴿٩٣ ﴾
94 অতঃপর তাদেরকে ও পথভ্রষ্টদেরকে জাহান্নামে মুখের ভরে নিক্ষেপ করা হবে।
[ ������-���������'������: 94 ]
فَكُبْكِبُوْا فِیْهَا هُمْ وَ الْغَاوٗنَۙ﴿٩٤ ﴾
95 আর ইবলীসের দলবল সবাইকে।
[ ������-���������'������: 95 ]
وَ جُنُوْدُ اِبْلِیْسَ اَجْمَعُوْنَؕ﴿٩٥ ﴾
96 সেখানে তারা বিতর্কে লিপ্ত হয়ে বলবে,
[ ������-���������'������: 96 ]
قَالُوْا وَ هُمْ فِیْهَا یَخْتَصِمُوْنَۙ﴿٩٦ ﴾
97 ‘আল্লাহর কসম! আমরা অবশ্য স্পষ্ট গুমরাহীতে ছিলাম।
[ ������-���������'������: 97 ]
تَاللّٰهِ اِنْ كُنَّا لَفِیْ ضَلٰلٍ مُّبِیْنٍۙ﴿٩٧ ﴾
98 যখন আমরা তোমাদেরকে সর্বজগতের পালনকর্তার সমকক্ষ স্থির করতাম।
[ ������-���������'������: 98 ]
اِذْ نُسَوِّیْكُمْ بِرَبِّ الْعٰلَمِیْنَ﴿٩٨ ﴾
99 অপরাধীরাই আমাদেরকে গোমরাহ্ করেছিল।
[ ������-���������'������: 99 ]
وَ مَاۤ اَضَلَّنَاۤ اِلَّا الْمُجْرِمُوْنَ﴿٩٩ ﴾
100 কাজেই আমাদের কোন সুপারিশকারী নেই।
[ ������-���������'������: 100 ]
فَمَا لَنَا مِنْ شَافِعِیْنَۙ﴿١٠٠ ﴾
101 একজন অন্তরঙ্গ বন্ধুও নেই।
[ ������-���������'������: 101 ]
وَ لَا صَدِیْقٍ حَمِیْمٍ﴿١٠١ ﴾
102 আমাদের যদি একটিবার পৃথিবীতে ফিরে যাওয়ার সুযোগ হত, তাহলে আমরা মু’মিনদের অর্ন্তভুক্ত হয়ে যেতাম।
[ ������-���������'������: 102 ]
فَلَوْ اَنَّ لَنَا كَرَّةً فَنَكُوْنَ مِنَ الْمُؤْمِنِیْنَ﴿١٠٢ ﴾
103 এতে অবশ্যই নিদর্শন আছে, কিন্তু তাদের অধিকাংশই ঈমান আনে না।
[ ������-���������'������: 103 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٠٣ ﴾
104 তোমার প্রতিপালক, তিনি অবশ্যই মহা পরাক্রমশালী, পরম দয়ালু।
[ ������-���������'������: 104 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ۠﴿١٠٤ ﴾
105 নূহের কওম রসুলগণকে মিথ্যে ব’লে প্রত্যাখান করেছিল।
[ ������-���������'������: 105 ]
كَذَّبَتْ قَوْمُ نُوْحِ ِ۟الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٠٥ ﴾
106 যখন তাদের ভ্রাতা নূহ তাদেরকে বলেছিল- ‘তোমরা কি ভয় করবে না (আল্লাহকে)?
[ ������-���������'������: 106 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ اَخُوْهُمْ نُوْحٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٠٦ ﴾
107 আমি তোমাদের জন্য (প্রেরিত) বিশ্বস্ত রাসুল।
[ ������-���������'������: 107 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٠٧ ﴾
108 কাজেই তোমরা আল্লাহকে ভয় কর ও আমার অনুসরণ কর।
[ ������-���������'������: 108 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٠٨ ﴾
109 আমি তার জন্য তোমাদের কাছে কোন প্রতিদান চাই না। আমার প্রতিদান একমাত্র বিশ্বজগতের প্রতিপালকের কাছেই আছে।’
[ ������-���������'������: 109 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَۚ﴿١٠٩ ﴾
110 কাজেই তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং আমার অনুসরণ কর।
[ ������-���������'������: 110 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِؕ﴿١١٠ ﴾
111 তারা বলল- ‘আমরা কি তোমার প্রতি বিশ্বাস করব যখন তোমার অনুসরণ করছে একেবারে নিম্নশ্রেণীর লোকেরা।’
[ ������-���������'������: 111 ]
قَالُوْۤا اَنُؤْمِنُ لَكَ وَ اتَّبَعَكَ الْاَرْذَلُوْنَؕ﴿١١١ ﴾
112 নূহ বলল- ‘তারা কী করত সেটা আমার জানা নেই।
[ ������-���������'������: 112 ]
قَالَ وَ مَا عِلْمِیْ بِمَا كَانُوْا یَعْمَلُوْنَۚ﴿١١٢ ﴾
113 তাদের হিসাব নেয়া তো আমার প্রতিপালকের কাজ, যদি তোমরা বুঝতে!
[ ������-���������'������: 113 ]
اِنْ حِسَابُهُمْ اِلَّا عَلٰی رَبِّیْ لَوْ تَشْعُرُوْنَۚ﴿١١٣ ﴾
114 মু’মিনদেরকে তাড়িয়ে দেয়া আমার কাজ নয়।
[ ������-���������'������: 114 ]
وَ مَاۤ اَنَا بِطَارِدِ الْمُؤْمِنِیْنَۚ﴿١١٤ ﴾
115 আমি তো শুধু একজন সুস্পষ্ট সতর্ককারী।’
[ ������-���������'������: 115 ]
اِنْ اَنَا اِلَّا نَذِیْرٌ مُّبِیْنٌؕ﴿١١٥ ﴾
116 তারা বলল- ‘হে নূহ! তুমি যদি বিরত না হও, তাহলে তুমি নিশ্চিতই প্রস্তরাঘাতে নিহত হবে।’
[ ������-���������'������: 116 ]
قَالُوْا لَىِٕنْ لَّمْ تَنْتَهِ یٰنُوْحُ لَتَكُوْنَنَّ مِنَ الْمَرْجُوْمِیْنَؕ﴿١١٦ ﴾
117 নূহ বলল- ‘হে আমার প্রতিপালক! আমার সম্প্রদায় আমাকে প্রত্যাখান করছে।
[ ������-���������'������: 117 ]
قَالَ رَبِّ اِنَّ قَوْمِیْ كَذَّبُوْنِۚۖ﴿١١٧ ﴾
118 কাজেই তুমি আমার ও তাদের মধ্যে ফয়সালা ক’রে দাও, আর আমাকে ও আমার সঙ্গী মু’মিনদেরকে ক্ষমা কর।’
[ ������-���������'������: 118 ]
فَافْتَحْ بَیْنِیْ وَ بَیْنَهُمْ فَتْحًا وَّ نَجِّنِیْ وَ مَنْ مَّعِیَ مِنَ الْمُؤْمِنِیْنَ﴿١١٨ ﴾
119 অতঃপর আমি তাকে ও তার সঙ্গে যারা ছিল তাদেরকে বোঝাই নৌযানে রক্ষা করলাম।
[ ������-���������'������: 119 ]
فَاَنْجَیْنٰهُ وَ مَنْ مَّعَهٗ فِی الْفُلْكِ الْمَشْحُوْنِۚ﴿١١٩ ﴾
120 তারপর অবশিষ্ট সবাইকে ডুবিয়ে দিলাম।
[ ������-���������'������: 120 ]
ثُمَّ اَغْرَقْنَا بَعْدُ الْبٰقِیْنَؕ﴿١٢٠ ﴾
121 অবশ্যই এতে নিদর্শন আছে, কিন্তু তাদের অধিকাংশই বিশ্বাসী নয়।
[ ������-���������'������: 121 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٢١ ﴾
122 তোমার প্রতিপালক, অবশ্যই তিনি প্রবল পরাক্রান্ত, পরম দয়ালু।
[ ������-���������'������: 122 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ۠﴿١٢٢ ﴾
123 ‘আদ সম্প্রদায় রসূলগণকে মিথ্যে সাব্যস্ত করেছিল।
[ ������-���������'������: 123 ]
كَذَّبَتْ عَادُ ِ۟الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٢٣ ﴾
124 যখন তাদের ভাই হূদ তাদেরকে বলল- ‘তোমরা কি (আল্লাহকে) ভয় করবে না?
[ ������-���������'������: 124 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ اَخُوْهُمْ هُوْدٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٢٤ ﴾
125 আমি তোমাদের জন্য (প্রেরিত) এক বিশ্বস্ত রসুল।
[ ������-���������'������: 125 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٢٥ ﴾
126 কাজেই তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং আমাকে মান্য কর।
[ ������-���������'������: 126 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٢٦ ﴾
127 আর এ জন্য আমি তোমাদের কাছে কোন প্রতিদান চাই না, আমার প্রতিদান আছে কেবল বিশ্বজগতের প্রতিপালকের নিকট।
[ ������-���������'������: 127 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٢٧ ﴾
128 তোমরা কি প্রতিটি উচ্চস্থানে অনর্থক স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করছ?
[ ������-���������'������: 128 ]
اَتَبْنُوْنَ بِكُلِّ رِیْعٍ اٰیَةً تَعْبَثُوْنَ﴿١٢٨ ﴾
129 আর বড় বড় প্রাসাদ নির্মাণ করছ. যেন তোমরা চিরদিন থাকবে?
[ ������-���������'������: 129 ]
وَ تَتَّخِذُوْنَ مَصَانِعَ لَعَلَّكُمْ تَخْلُدُوْنَۚ﴿١٢٩ ﴾
130 আর যখন তোমরা (দুর্বল শ্রেণীর লোকদের উপর) আঘাত হান, তখন আঘাত হান নিষ্ঠুর মালিকের মত।
[ ������-���������'������: 130 ]
وَ اِذَا بَطَشْتُمْ بَطَشْتُمْ جَبَّارِیْنَۚ﴿١٣٠ ﴾
131 কাজেই তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং আমাকে মান্য কর।
[ ������-���������'������: 131 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٣١ ﴾
132 ভয় কর তাঁকে যিনি তোমাদেরকে যাবতীয় বস্তু দান করেছেন যা তোমাদের জানা আছে।
[ ������-���������'������: 132 ]
وَ اتَّقُوا الَّذِیْۤ اَمَدَّكُمْ بِمَا تَعْلَمُوْنَۚ﴿١٣٢ ﴾
133 যিনি তোমাদেরকে দান করেছেন গবাদি পশু ও সন্তান-সন্তুতি।
[ ������-���������'������: 133 ]
اَمَدَّكُمْ بِاَنْعَامٍ وَّ بَنِیْنَۚۙ﴿١٣٣ ﴾
134 আর উদ্যানরাজি ও ঝর্ণাসমূহ।
[ ������-���������'������: 134 ]
وَ جَنّٰتٍ وَّ عُیُوْنٍۚ﴿١٣٤ ﴾
135 আমি তোমাদের জন্য মহা দিবসের শাস্তির ভয় করছি।’
[ ������-���������'������: 135 ]
اِنِّیْۤ اَخَافُ عَلَیْكُمْ عَذَابَ یَوْمٍ عَظِیْمٍؕ﴿١٣٥ ﴾
136 তারা বলল- ‘তুমি নসীহত কর আর না কর, আমাদের জন্য দু’ই সমান।
[ ������-���������'������: 136 ]
قَالُوْا سَوَآءٌ عَلَیْنَاۤ اَوَ عَظْتَ اَمْ لَمْ تَكُنْ مِّنَ الْوٰعِظِیْنَۙ﴿١٣٦ ﴾
137 এসব (কথাবার্তা বলা) পূর্ববর্তী লোকেদের অভ্যাস ছাড়া আর অন্য কিছুই না।
[ ������-���������'������: 137 ]
اِنْ هٰذَاۤ اِلَّا خُلُقُ الْاَوَّلِیْنَۙ﴿١٣٧ ﴾
138 আমাদেরকে শাস্তি দেয়া হবে না।’
[ ������-���������'������: 138 ]
وَ مَا نَحْنُ بِمُعَذَّبِیْنَۚ﴿١٣٨ ﴾
139 অতঃপর তারা তাকে মিথ্যে ব’লে প্রত্যাখ্যান করল। তখন আমি তাদেরকে ধ্বংস করে দিলাম। অবশ্যই এতে নিদর্শন রয়েছে, কিন্তু তাদের অধিকাংশই বিশ্বাস করে না।
[ ������-���������'������: 139 ]
فَكَذَّبُوْهُ فَاَهْلَكْنٰهُمْ ؕ اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٣٩ ﴾
140 এবং তোমার প্রতিপালক, তিনি মহা প্রতাপশালী, বড়ই দয়ালু।
[ ������-���������'������: 140 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿١٤٠ ﴾
141 সামূদ জাতি রসূলগণকে প্রত্যাখ্যান করেছিল।
[ ������-���������'������: 141 ]
كَذَّبَتْ ثَمُوْدُ الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٤١ ﴾
142 যখন তাদের ভাই সালিহ তাদেরকে বলেছিল- তোমরা কি (আল্লাহকে) ভয় করবে না?
[ ������-���������'������: 142 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ اَخُوْهُمْ صٰلِحٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٤٢ ﴾
143 আমি তোমাদের জন্য (প্রেরিত) বিশ্বস্ত রসূল।
[ ������-���������'������: 143 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٤٣ ﴾
144 কাজেই তোমরা আল্লাহকে ভয় কর ও আমাকে মান্য কর।
[ ������-���������'������: 144 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٤٤ ﴾
145 আর এজন্য আমি তোমাদের কাছে কোন প্রতিদান চাই না, আমার প্রতিদান তো আছে একমাত্র বিশ্বজগতের প্রতিপালকের নিকট।
[ ������-���������'������: 145 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٤٥ ﴾
146 তোমাদেরকে কি এখানে যে সব (ভোগ বিলাস) আছে তাতেই নিরাপদে রেখে দেয়া হবে?
[ ������-���������'������: 146 ]
اَتُتْرَكُوْنَ فِیْ مَا هٰهُنَاۤ اٰمِنِیْنَۙ﴿١٤٦ ﴾
147 উদ্যানরাজি আর ঝার্ণাসমূহে।
[ ������-���������'������: 147 ]
فِیْ جَنّٰتٍ وَّ عُیُوْنٍۙ﴿١٤٧ ﴾
148 আর শষ্যক্ষেতে ও ফুলে আচ্ছাদিত (ফলে ভারাক্রান্ত) খেজুর বাগানে?
[ ������-���������'������: 148 ]
وَّ زُرُوْعٍ وَّ نَخْلٍ طَلْعُهَا هَضِیْمٌۚ﴿١٤٨ ﴾
149 এবং তোমরা দক্ষতার সাথে পাহাড় কেটে গৃহ নির্মাণ করছ।
[ ������-���������'������: 149 ]
وَ تَنْحِتُوْنَ مِنَ الْجِبَالِ بُیُوْتًا فٰرِهِیْنَۚ﴿١٤٩ ﴾
150 কাজেই তোমরা আল্লাহকে ভয় কর ও আমাকে মান্য কর।
[ ������-���������'������: 150 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٥٠ ﴾
151 এবং সীমালঙ্ঘনকারীদের নির্দেশ মান্য কর না।
[ ������-���������'������: 151 ]
وَ لَا تُطِیْعُوْۤا اَمْرَ الْمُسْرِفِیْنَۙ﴿١٥١ ﴾
152 যারা পৃথিবীতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে, সংস্কার করে না।’
[ ������-���������'������: 152 ]
الَّذِیْنَ یُفْسِدُوْنَ فِی الْاَرْضِ وَ لَا یُصْلِحُوْنَ﴿١٥٢ ﴾
153 তারা বলল- ‘তুমি তো কেবল যাদুগ্রস্তদের একজন।
[ ������-���������'������: 153 ]
قَالُوْۤا اِنَّمَاۤ اَنْتَ مِنَ الْمُسَحَّرِیْنَۚ﴿١٥٣ ﴾
154 তুমি আমাদের মত মানুষ ছাড়া আর কিছুই না। কাজেই তুমি সত্যবাদী হলে একটা নিদর্শন হাজির কর।
[ ������-���������'������: 154 ]
مَاۤ اَنْتَ اِلَّا بَشَرٌ مِّثْلُنَا ۖۚ فَاْتِ بِاٰیَةٍ اِنْ كُنْتَ مِنَ الصّٰدِقِیْنَ﴿١٥٤ ﴾
155 সালিহ বলল- ‘এই একটি উটনি, এর জন্য আছে পানি পানের পালা আর তোমাদের জন্য আছে পানি পানের পালা নির্ধারিত দিনে।
[ ������-���������'������: 155 ]
قَالَ هٰذِهٖ نَاقَةٌ لَّهَا شِرْبٌ وَّ لَكُمْ شِرْبُ یَوْمٍ مَّعْلُوْمٍۚ﴿١٥٥ ﴾
156 অনিষ্ট সাধনের নিমিত্তে তাকে স্পর্শ কর না, তাহলে তোমাদেরকে মহা দিবসের আযাব পাকড়াও করবে।
[ ������-���������'������: 156 ]
وَ لَا تَمَسُّوْهَا بِسُوْٓءٍ فَیَاْخُذَكُمْ عَذَابُ یَوْمٍ عَظِیْمٍ﴿١٥٦ ﴾
157 কিন্তু তারা তাকে বধ করল, ফলে তারা অনুতপ্ত হল।
[ ������-���������'������: 157 ]
فَعَقَرُوْهَا فَاَصْبَحُوْا نٰدِمِیْنَۙ﴿١٥٧ ﴾
158 অতঃপর আযাব তাদেরকে পাকড়াও করল। এতে অবশ্যই নিদর্শন রয়েছে, কিন্তু তাদের অধিকাংশই বিশ্বাস করে না।
[ ������-���������'������: 158 ]
فَاَخَذَهُمُ الْعَذَابُ ؕ اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٥٨ ﴾
159 আর তোমার প্রতিপালক তিনি তো মহা পরাক্রমশালী, বড়ই দয়ালু।
[ ������-���������'������: 159 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿١٥٩ ﴾
160 লূতের সম্প্রদায় রসুলদেরকে মিথ্যে বলে প্রত্যাখ্যান করেছিল।
[ ������-���������'������: 160 ]
كَذَّبَتْ قَوْمُ لُوْطِ ِ۟الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٦٠ ﴾
161 যখন তাদের ভাই লূত তাদেরকে বলেছিল- ‘তোমরা কি (আল্লাহকে) ভয় করবে না?
[ ������-���������'������: 161 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ اَخُوْهُمْ لُوْطٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٦١ ﴾
162 আমি তো তোমাদের জন্য (প্রেরিত) একজন বিশ্বস্ত রসূল।
[ ������-���������'������: 162 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٦٢ ﴾
163 কাজেই তোমরা আল্লাহকে ভয় কর ও আমাকে মান্য কর।
[ ������-���������'������: 163 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٦٣ ﴾
164 আমি এজন্য তোমাদের কাছে কোন প্রতিদান চাই না, আমার প্রতিদান একমাত্র জগতসমূহের প্রতিপালকের নিকট রয়েছে।
[ ������-���������'������: 164 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٦٤ ﴾
165 জগতের সকল প্রাণীর মধ্যে তোমরাই কি পুরুষদের সঙ্গে উপগত হও,
[ ������-���������'������: 165 ]
اَتَاْتُوْنَ الذُّكْرَانَ مِنَ الْعٰلَمِیْنَۙ﴿١٦٥ ﴾
166 এবং তোমাদের প্রতিপালক তোমাদের জন্য যে স্ত্রীগণকে সৃষ্টি করেছেন তাদেরকে ত্যাগ কর? রবং তোমরা এক সীমালঙ্ঘনকারী সম্প্রদায়।’
[ ������-���������'������: 166 ]
وَ تَذَرُوْنَ مَا خَلَقَ لَكُمْ رَبُّكُمْ مِّنْ اَزْوَاجِكُمْ ؕ بَلْ اَنْتُمْ قَوْمٌ عٰدُوْنَ﴿١٦٦ ﴾
167 তারা বলল- ‘হে লূত! তুমি যদি বিরত না হও তবে তুমি অবশ্য অবশ্যই বহিস্কৃত হবে।’
[ ������-���������'������: 167 ]
قَالُوْا لَىِٕنْ لَّمْ تَنْتَهِ یٰلُوْطُ لَتَكُوْنَنَّ مِنَ الْمُخْرَجِیْنَ﴿١٦٧ ﴾
168 লূত বলল- ‘আমি তোমাদের এ কাজকে ঘৃণা করি।
[ ������-���������'������: 168 ]
قَالَ اِنِّیْ لِعَمَلِكُمْ مِّنَ الْقَالِیْنَؕ﴿١٦٨ ﴾
169 হে আমার প্রতিপালক! তারা যা করে তা থেকে তুমি আমাকে ও আমার পরিবারবর্গকে রক্ষা কর।’
[ ������-���������'������: 169 ]
رَبِّ نَجِّنِیْ وَ اَهْلِیْ مِمَّا یَعْمَلُوْنَ﴿١٦٩ ﴾
170 অতঃপর আমি তাকে ও তার পরিবারবর্গের সকলকে রক্ষা করলাম
[ ������-���������'������: 170 ]
فَنَجَّیْنٰهُ وَ اَهْلَهٗۤ اَجْمَعِیْنَۙ﴿١٧٠ ﴾
171 এক বৃদ্ধা ছাড়া। সে ছিল পেছনে অবস্থানকারীদের অন্তর্ভুক্ত।
[ ������-���������'������: 171 ]
اِلَّا عَجُوْزًا فِی الْغٰبِرِیْنَۚ﴿١٧١ ﴾
172 অতঃপর অন্যদের সকলকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিলাম।
[ ������-���������'������: 172 ]
ثُمَّ دَمَّرْنَا الْاٰخَرِیْنَۚ﴿١٧٢ ﴾
173 তাদের উপর বর্ষণ করলাম (শাস্তির) বৃষ্টি, ভয় প্রদর্শিতদের জন্য এ বৃষ্টি ছিল কতই না মন্দ!
[ ������-���������'������: 173 ]
وَ اَمْطَرْنَا عَلَیْهِمْ مَّطَرًا ۚ فَسَآءَ مَطَرُ الْمُنْذَرِیْنَ﴿١٧٣ ﴾
174 নিশ্চয়ই এতে নিদর্শন রয়েছে, কিন্তু অধিকাংশই বিশ্বাস করে না।
[ ������-���������'������: 174 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٧٤ ﴾
175 তোমার প্রতিপালক, তিনি মহা প্রতাপশালী, বড়ই দয়ালু।
[ ������-���������'������: 175 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿١٧٥ ﴾
176 বনের অধিবাসীরা রসূলদেরকে মিথ্যে বলে প্রত্যাখ্যান করেছিল।
[ ������-���������'������: 176 ]
كَذَّبَ اَصْحٰبُ لْـَٔیْكَةِ الْمُرْسَلِیْنَۚۖ﴿١٧٦ ﴾
177 যখন শু‘আয়ব তাদেরকে বলেছিল- ‘তোমরা কি (আল্লাহকে) ভয় করবে না?
[ ������-���������'������: 177 ]
اِذْ قَالَ لَهُمْ شُعَیْبٌ اَلَا تَتَّقُوْنَۚ﴿١٧٧ ﴾
178 আমি তোমাদের জন্য (প্রেরিত) বিশ্বস্ত রাসুল।
[ ������-���������'������: 178 ]
اِنِّیْ لَكُمْ رَسُوْلٌ اَمِیْنٌۙ﴿١٧٨ ﴾
179 কাজেই তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং আমাকে মান্য কর।
[ ������-���������'������: 179 ]
فَاتَّقُوا اللّٰهَ وَ اَطِیْعُوْنِۚ﴿١٧٩ ﴾
180 এ জন্য আমি তোমাদের কাছে কোন প্রতিদান চাই না, আমার প্রতিদান তো রয়েছে একমাত্র জগতসমূহের প্রতিপালকের নিকট।
[ ������-���������'������: 180 ]
وَ مَاۤ اَسْـَٔلُكُمْ عَلَیْهِ مِنْ اَجْرٍ ۚ اِنْ اَجْرِیَ اِلَّا عَلٰی رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٨٠ ﴾
181 মাপে পূর্ণ মাত্রায় দাও আর যারা মাপে কম দেয় তাদের অন্তর্ভুক্ত হয়ো না।
[ ������-���������'������: 181 ]
اَوْفُوا الْكَیْلَ وَ لَا تَكُوْنُوْا مِنَ الْمُخْسِرِیْنَۚ﴿١٨١ ﴾
182 সঠিক দাঁড়িপাল্লায় ওজন করবে।
[ ������-���������'������: 182 ]
وَزِنُوْا بِالْقِسْطَاسِ الْمُسْتَقِیْمِۚ﴿١٨٢ ﴾
183 মানুষকে তাদের প্রাপ্যবস্তু কম দিবে না। আর পৃথিবীতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করো না।
[ ������-���������'������: 183 ]
وَ لَا تَبْخَسُوا النَّاسَ اَشْیَآءَهُمْ وَ لَا تَعْثَوْا فِی الْاَرْضِ مُفْسِدِیْنَۚ﴿١٨٣ ﴾
184 এবং ভয় কর তাঁকে যিনি তোমাদেরকে এবং তোমাদের পূর্ববর্তী বংশাবলীকে সৃষ্টি করেছেন।’
[ ������-���������'������: 184 ]
وَ اتَّقُوا الَّذِیْ خَلَقَكُمْ وَ الْجِبِلَّةَ الْاَوَّلِیْنَؕ﴿١٨٤ ﴾
185 তারা বলল- ‘তুমি তো কেবল যাদুগ্রস্তদের একজন।
[ ������-���������'������: 185 ]
قَالُوْۤا اِنَّمَاۤ اَنْتَ مِنَ الْمُسَحَّرِیْنَۙ﴿١٨٥ ﴾
186 তুমি আমাদের মতই মানুষ বৈ নও, আমরা মনে করি তুমি অবশ্য মিথ্যাবাদীদের অন্তর্ভুক্ত।
[ ������-���������'������: 186 ]
وَ مَاۤ اَنْتَ اِلَّا بَشَرٌ مِّثْلُنَا وَ اِنْ نَّظُنُّكَ لَمِنَ الْكٰذِبِیْنَۚ﴿١٨٦ ﴾
187 তুমি সত্যবাদী হলে আকাশের এক টুকরো আমাদের উপর ফেলে দাও।’
[ ������-���������'������: 187 ]
فَاَسْقِطْ عَلَیْنَا كِسَفًا مِّنَ السَّمَآءِ اِنْ كُنْتَ مِنَ الصّٰدِقِیْنَؕ﴿١٨٧ ﴾
188 শু‘আয়ব বলল- ‘তোমরা যা কর, আমার প্রতিপালক সে সম্পর্কে বেশি অবগত।’
[ ������-���������'������: 188 ]
قَالَ رَبِّیْۤ اَعْلَمُ بِمَا تَعْمَلُوْنَ﴿١٨٨ ﴾
189 কিন্তু তারা তাকে প্রত্যাখ্যান করল। ফলে তাদেরকে এক মেঘাচ্ছন্ন দিবসের শাস্তি পাকড়াও করল। তা ছিল এক মহা দিবসের ‘আযাব।
[ ������-���������'������: 189 ]
فَكَذَّبُوْهُ فَاَخَذَهُمْ عَذَابُ یَوْمِ الظُّلَّةِ ؕ اِنَّهٗ كَانَ عَذَابَ یَوْمٍ عَظِیْمٍ﴿١٨٩ ﴾
190 এতে অবশ্যই নিদর্শন রয়েছে। কিন্তু তাদের অধিকাংশই বিশ্বাস করে না।
[ ������-���������'������: 190 ]
اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیَةً ؕ وَ مَا كَانَ اَكْثَرُهُمْ مُّؤْمِنِیْنَ﴿١٩٠ ﴾
191 আর তোমার প্রতিপালক, তিনি অবশ্যই মহা প্রতাপশালী, বড়ই দয়ালু।
[ ������-���������'������: 191 ]
وَ اِنَّ رَبَّكَ لَهُوَ الْعَزِیْزُ الرَّحِیْمُ﴿١٩١ ﴾
192 অবশ্যই এ কুরআন জগতসমূহের প্রতিপালকের নিকট হতে অবতীর্ণ।
[ ������-���������'������: 192 ]
وَ اِنَّهٗ لَتَنْزِیْلُ رَبِّ الْعٰلَمِیْنَؕ﴿١٩٢ ﴾
193 বিশ্বস্ত আত্মা (জিবরাঈল) একে নিয়ে অবতরণ করেছে
[ ������-���������'������: 193 ]
نَزَلَ بِهِ الرُّوْحُ الْاَمِیْنُۙ﴿١٩٣ ﴾
194 তোমার অন্তরে যাতে তুমি সতর্ককারীদের অন্তর্ভুক্ত হও।
[ ������-���������'������: 194 ]
عَلٰی قَلْبِكَ لِتَكُوْنَ مِنَ الْمُنْذِرِیْنَ﴿١٩٤ ﴾
195 সুস্পষ্ট আরবী ভাষায়।
[ ������-���������'������: 195 ]
بِلِسَانٍ عَرَبِیٍّ مُّبِیْنٍؕ﴿١٩٥ ﴾
196 পূর্ববর্তী কিতাবসমূহেও নিশ্চয় এর উল্লেখ আছে।
[ ������-���������'������: 196 ]
وَ اِنَّهٗ لَفِیْ زُبُرِ الْاَوَّلِیْنَ﴿١٩٦ ﴾
197 এটা কি তাদের জন্য নিদর্শন নয় যে, বানী ইসরাঈলের পন্ডিতগণ তা জানত (যে তা সত্য)।
[ ������-���������'������: 197 ]
اَوَ لَمْ یَكُنْ لَّهُمْ اٰیَةً اَنْ یَّعْلَمَهٗ عُلَمٰٓؤُا بَنِیْۤ اِسْرَآءِیْلَؕ﴿١٩٧ ﴾
198 আমি যদি তা কোন অনারবের প্রতি অবতীর্ণ করতাম,
[ ������-���������'������: 198 ]
وَ لَوْ نَزَّلْنٰهُ عَلٰی بَعْضِ الْاَعْجَمِیْنَۙ﴿١٩٨ ﴾
199 অতঃপর সে তা তাদের নিকট পাঠ করত, তাহলে তারা তাতে বিশ্বাস আনত না।
[ ������-���������'������: 199 ]
فَقَرَاَهٗ عَلَیْهِمْ مَّا كَانُوْا بِهٖ مُؤْمِنِیْنَؕ﴿١٩٩ ﴾
200 এভাবে আমি অপরাধীদের অন্তরে অবিশ্বাস সঞ্চার করেছি।
[ ������-���������'������: 200 ]
كَذٰلِكَ سَلَكْنٰهُ فِیْ قُلُوْبِ الْمُجْرِمِیْنَؕ﴿٢٠٠ ﴾
201 তারা এর প্রতি ঈমান আনবে না যতক্ষণ না তারা ভয়াবহ শাস্তি প্রত্যক্ষ করে।
[ ������-���������'������: 201 ]
لَا یُؤْمِنُوْنَ بِهٖ حَتّٰی یَرَوُا الْعَذَابَ الْاَلِیْمَۙ﴿٢٠١ ﴾
202 কাজেই তা তাদের কাছে হঠাৎ এসে পড়বে, তারা কিছুই বুঝতে পারবে না।
[ ������-���������'������: 202 ]
فَیَاْتِیَهُمْ بَغْتَةً وَّ هُمْ لَا یَشْعُرُوْنَۙ﴿٢٠٢ ﴾
203 তারা তখন বলবে- ‘আমাদেরকে কি অবকাশ দেয়া হবে?’
[ ������-���������'������: 203 ]
فَیَقُوْلُوْا هَلْ نَحْنُ مُنْظَرُوْنَؕ﴿٢٠٣ ﴾
204 তারা কি আমার শাস্তি দ্রুত কামনা করে?
[ ������-���������'������: 204 ]
اَفَبِعَذَابِنَا یَسْتَعْجِلُوْنَ﴿٢٠٤ ﴾
205 তুমি কি ভেবে দেখেছ আমি যদি তাদেরকে কতক বছর ভোগ বিলাস করতে দেই,
[ ������-���������'������: 205 ]
اَفَرَءَیْتَ اِنْ مَّتَّعْنٰهُمْ سِنِیْنَۙ﴿٢٠٥ ﴾
206 অতঃপর তাদেরকে যে বিষয়ের ও‘য়াদা দেয়া হত তা তাদের কাছে এসে পড়ে।
[ ������-���������'������: 206 ]
ثُمَّ جَآءَهُمْ مَّا كَانُوْا یُوْعَدُوْنَۙ﴿٢٠٦ ﴾
207 তখন তাদের বিলাসের সামগ্রী তাদের কোন উপকারে আসবে না।
[ ������-���������'������: 207 ]
مَاۤ اَغْنٰی عَنْهُمْ مَّا كَانُوْا یُمَتَّعُوْنَؕ﴿٢٠٧ ﴾
208 আমি এমন কোন জনপদ ধ্বংস করিনি যার জন্য কোন ভয় প্রদর্শনকারী ছিল না
[ ������-���������'������: 208 ]
وَ مَاۤ اَهْلَكْنَا مِنْ قَرْیَةٍ اِلَّا لَهَا مُنْذِرُوْنَ ۗۛۖ﴿٢٠٨ ﴾
209 স্মরণ করানোর জন্য। আমি কখনো অন্যায়কারী নই।
[ ������-���������'������: 209 ]
ذِكْرٰی ۛ۫ وَ مَا كُنَّا ظٰلِمِیْنَ﴿٢٠٩ ﴾
210 শয়ত্বানরা তা (অর্থাৎ কুরআন) নিয়ে অবতরণ করেনি।
[ ������-���������'������: 210 ]
وَ مَا تَنَزَّلَتْ بِهِ الشَّیٰطِیْنُ﴿٢١٠ ﴾
211 তারা এ কাজের যোগ্য নয় আর তারা এর সামর্থ্যও রাখে না।
[ ������-���������'������: 211 ]
وَ مَا یَنْۢبَغِیْ لَهُمْ وَ مَا یَسْتَطِیْعُوْنَؕ﴿٢١١ ﴾
212 তাদেরকে এটা শোনা থেকে অবশ্যই দূরে রাখা হয়েছে।
[ ������-���������'������: 212 ]
اِنَّهُمْ عَنِ السَّمْعِ لَمَعْزُوْلُوْنَؕ﴿٢١٢ ﴾
213 কাজেই তুমি অন্য কোন ইলাহ্কে আল্লাহর সঙ্গে ডেক না। ডাকলে তুমি শাস্তিপ্রাপ্তদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে।
[ ������-���������'������: 213 ]
فَلَا تَدْعُ مَعَ اللّٰهِ اِلٰهًا اٰخَرَ فَتَكُوْنَ مِنَ الْمُعَذَّبِیْنَۚ﴿٢١٣ ﴾
214 আর তুমি সতর্ক কর তোমার নিকটাত্মীয় স্বজনদের
[ ������-���������'������: 214 ]
وَ اَنْذِرْ عَشِیْرَتَكَ الْاَقْرَبِیْنَۙ﴿٢١٤ ﴾
215 যে সকল বিশ্বাসীরা তোমার আনুগত্য করে তাদের জন্য তুমি তোমার অনুকম্পার বাহু প্রসারিত কর।
[ ������-���������'������: 215 ]
وَ اخْفِضْ جَنَاحَكَ لِمَنِ اتَّبَعَكَ مِنَ الْمُؤْمِنِیْنَۚ﴿٢١٥ ﴾
216 তারা যদি তোমার অবাধ্যতা করে তাহলে তুমি বলে দাও- তোমরা যা কর তার সঙ্গে আমি সম্পর্কহীন।
[ ������-���������'������: 216 ]
فَاِنْ عَصَوْكَ فَقُلْ اِنِّیْ بَرِیْٓءٌ مِّمَّا تَعْمَلُوْنَۚ﴿٢١٦ ﴾
217 আর তুমি প্রবল পরাক্রান্ত পরম দয়ালুর উপর নির্ভর কর;
[ ������-���������'������: 217 ]
وَ تَوَكَّلْ عَلَی الْعَزِیْزِ الرَّحِیْمِۙ﴿٢١٧ ﴾
218 যিনি তোমাকে দেখেন যখন তুমি (নামাযের জন্য) দন্ডায়মান হও।
[ ������-���������'������: 218 ]
الَّذِیْ یَرٰىكَ حِیْنَ تَقُوْمُۙ﴿٢١٨ ﴾
219 আর (তিনি দেখেন) সাজদাকারীদের সঙ্গে তোমার চলাফিরা।
[ ������-���������'������: 219 ]
وَ تَقَلُّبَكَ فِی السّٰجِدِیْنَ﴿٢١٩ ﴾
220 তিনি সব কিছু শোনেন, সব কিছু জানেন।
[ ������-���������'������: 220 ]
اِنَّهٗ هُوَ السَّمِیْعُ الْعَلِیْمُ﴿٢٢٠ ﴾
221 আমি কি তোমাদেরকে জানাব কাদের নিকট শয়ত্বানরা অবতীর্ণ হয়।
[ ������-���������'������: 221 ]
هَلْ اُنَبِّئُكُمْ عَلٰی مَنْ تَنَزَّلُ الشَّیٰطِیْنُؕ﴿٢٢١ ﴾
222 তারা অবতীর্ণ হয় প্রত্যেকটি চরম মিথ্যুক ও পাপীর নিকট।
[ ������-���������'������: 222 ]
تَنَزَّلُ عَلٰی كُلِّ اَفَّاكٍ اَثِیْمٍۙ﴿٢٢٢ ﴾
223 ওরা কান পেতে থাকে আর তাদের অধিকাংশই মিথ্যাবাদী।
[ ������-���������'������: 223 ]
یُّلْقُوْنَ السَّمْعَ وَ اَكْثَرُهُمْ كٰذِبُوْنَؕ﴿٢٢٣ ﴾
224 বিভ্রান্তরাই কবিদের অনুসরণ করে,
[ ������-���������'������: 224 ]
وَ الشُّعَرَآءُ یَتَّبِعُهُمُ الْغَاوٗنَؕ﴿٢٢٤ ﴾
225 তুমি কি দেখ না যে, তারা প্রতি ময়দানেই উদভ্রান্ত হয়ে ফিরে?
[ ������-���������'������: 225 ]
اَلَمْ تَرَ اَنَّهُمْ فِیْ كُلِّ وَادٍ یَّهِیْمُوْنَۙ﴿٢٢٥ ﴾
226 আর তারা যা বলে তা তারা নিজেরা করে না।
[ ������-���������'������: 226 ]
وَ اَنَّهُمْ یَقُوْلُوْنَ مَا لَا یَفْعَلُوْنَۙ﴿٢٢٦ ﴾
227 কিন্তু ওরা ব্যতীত যারা ঈমান আনে ও সৎকাজ করে আর আল্লাহকে খুব বেশি স্মরণ করে আর নির্যাতিত হওয়ার পর নিজেদের প্রতিরক্ষার ব্যবস্থা করে। যালিমরা শীঘ্রই জানতে পারবে কোন্ (মহা সংকটময়) জায়গায় তারা ফিরে যাচ্ছে।
[ ������-���������'������: 227 ]
اِلَّا الَّذِیْنَ اٰمَنُوْا وَ عَمِلُوا الصّٰلِحٰتِ وَ ذَكَرُوا اللّٰهَ كَثِیْرًا وَّ انْتَصَرُوْا مِنْۢ بَعْدِ مَا ظُلِمُوْا ؕ وَ سَیَعْلَمُ الَّذِیْنَ ظَلَمُوْۤا اَیَّ مُنْقَلَبٍ یَّنْقَلِبُوْنَ﴿٢٢٧ ﴾